পরমাণু অস্ত্র চুক্তি স্থগিত করা রাশিয়ার ‘বড় ভুল’, বলেছেন জো বাইডেন

0
29
পরমাণু অস্ত্র চুক্তি স্থগিত

পরমাণু অস্ত্র চুক্তি স্থগিত : যুক্তরাষ্ট্রের সাথে এক যুগ আগে করা ‘নিউ স্টার্ট’ অস্ত্র চুক্তি স্থগিত করার রুশ সিদ্ধান্তকে ‘বড় ধরণের ভুল’ বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। মঙ্গলবার মস্কোতে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া এক ভাষণে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

দুই হাজার দশ সালে করা ঐ চুক্তির শর্ত অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া দুই দেশেরই পরমাণু অস্ত্র তৈরিতে বাধ্যবাধকতা রয়েছে এবং এক দেশকে অন্য দেশের অস্ত্র পর্যবেক্ষণের ক্ষমতা দেয়া হয়েছে।

পোল্যান্ডে নেটোর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সদস্য দেশের সাথে বৈঠকের সময় এই মন্তব্য করেন মি. বাইডেন।

‘বুখারেস্ট নাইন’ হিসেবে পরিচিত পূর্ব ইউরোপের কয়েকটি দেশের জোটের সাথে এই বৈঠকে সদস্য দেশগুলো ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের নিন্দা জানায়।

পরমাণু চুক্তি স্থগিত করার সিদ্ধান্ত রুশ পার্লামেন্টের দুই কক্ষই বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে অনুমোদন করেছে।

তবে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরে জানায় যে ‘নিউ স্টার্ট চুক্তি’র অধীনে থাকা নিষেধাজ্ঞা ‘দায়িত্বশীলতার সাথে’ মেনে চলবে মস্কো।

এই বিষয়ে রাশিয়ার সংসদের নিম্ন কক্ষকে এক সিনিয়র সেনা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রাশিয়া পারমাণবিক অস্ত্র অর্থাৎ ক্ষেপনাস্ত্র এবং স্ট্র্যাটেজিক বোমারু বিমান সরবরাহের ক্ষেত্রে চুক্তির শর্ত মেনে চলবে।

রাশিয়া বলছে নেটো তাদের অস্তিত্ব সংকটে ফেলতে পারে।

ইউক্রেন যুদ্ধের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে মস্কোর এক র‍্যালিতে ভ্লাদিমির পুতিন মন্তব্য করেন যে ইউক্রেনে রাশিয়া ‘ঐতিহাসিকভাবে নিজেদের’ ভূখণ্ড পুনরাধিকার করার জন্য লড়াই করছে।

এর আগে তিনি মস্কোতে চীনের শীর্ষ কূটনীতিক ওয়াং ই’র সাথে দেখা করেন এবং বেইজিংয়ের সহযোগিতা ‘আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ’ বলে মন্তব্য করেন।

মি. ওয়াং জানান মস্কোর সাথে জোট শক্তিশালী করতে চীন প্রস্তুত এবং অন্য দেশের চাপে তাদের সম্পর্ক প্রভাবিত হবে না।

পরমাণু অস্ত্র চুক্তি স্থগিত নিউ স্টার্ট চুক্তি ?

দুই হাজার দশ সালে তৎকালীন দুই প্রেসিডেন্ট, বারাক ওবামা ও দিমিত্রি মেদভেদেভ এই ‘নিউ স্টার্ট’ চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

দুই দেশ যাতে পারমাণবিক যুদ্ধে জড়িয়ে না পড়ে, তা নিশ্চিত করতে এই চুক্তি করা হয়েছিল।

চুক্তি অনুযায়ী, দুই পক্ষই ব্যবহারযোগ্য পারমাণবিক অস্ত্রের উৎপাদন সীমিত রাখবে এবং এক দেশ অন্য দেশের পারমাণবিক অস্ত্র কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে পারবে।

এই চুক্তি ২০১১ সালে বাস্তবায়িত হয় এবং দশ বছর পরে এটি নবায়ন করা হয়। কোভিড সংক্রমণ চলাকালে অস্ত্র পর্যবেক্ষণ কার্যক্রম ব্যহত হয়।

আমেরিকা ও রাশিয়ার কাছে পৃথিবীর প্রায় সব পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে।

রাশিয়া এর আগে জানিয়েছে, তারা চুক্তি অব্যাহত রাখতে চায়। যদিও ইউক্রেন যুদ্ধ চলাকালীন সময় দুই পক্ষের বক্তব্যই ছিল আগ্রাসী।

‘বুখারেস্ট নাইনে’র সদস্য দেশগুলোর সাথে বৈঠকের সময় মি. বাইডেন মন্তব্য করেছেন যে নিউ স্টার্ট চুক্তি স্থগিত করা রাশিয়ার ‘বড় ভুল।’

পাশাপাশি, নেটোর সদস্য দেশগুলোর প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতির বিষয়টিতেও জোর দিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, “অনুচ্ছেদ ৫ যুক্তরাষ্ট্রের একটি পবিত্র প্রতিশ্রুতি। আমরা নেটোর প্রতি ইঞ্চি জায়গা রক্ষা করবো।”
মস্কোতে চীনের শীর্ষ কূটনীতিক ওয়াং ই’র সাথে রুশ প্রেসিডেন্ট মি. পুতিন

ওই অনুচ্ছেদে আরো বলা হয়েছে, নেটোর যে কোন সদস্য রাষ্ট্রের প্রতি আক্রমণকে সব সদস্য দেশের ওপর আক্রমণ হিসেবে বিবেচনা করা হবে এবং এই আক্রমণের বিরুদ্ধে যৌথভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বৈঠক শেষে যৌথ বিবৃতিতে উপস্থিত সদস্যরা জানায় যে তাদের সীমানার ভেতরে নেটোর সেনা উপস্থিতি বাড়াতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তারা।

রাশিয়া বলছে নেটো তাদের অস্তিত্ব সংকটে ফেলতে পারে।

ইউক্রেন যুদ্ধের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে মস্কোর এক র‍্যালিতে ভ্লাদিমির পুতিন মন্তব্য করেন যে ইউক্রেনে রাশিয়া ‘ঐতিহাসিকভাবে নিজেদের’ ভূখণ্ড পুনরাধিকার করার জন্য লড়াই করছে।

এর আগে তিনি মস্কোতে চীনের শীর্ষ কূটনীতিক ওয়াং ই’র সাথে দেখা করেন এবং বেইজিংয়ের সহযোগিতা ‘আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ’ বলে মন্তব্য করেন।

মি. ওয়াং জানান মস্কোর সাথে জোট শক্তিশালী করতে চীন প্রস্তুত এবং অন্য দেশের চাপে তাদের সম্পর্ক প্রভাবিত হবে না।