বাংলাদেশে জিনিসপত্রের দাম দিন দিন বেড়েই চলেছে |

0
8

 

AVvXsEhPwB4P9sZaqQ FD 7B7VxxL YqNSFeUxXLXQAAFx692N WxPthh4E7jI06xLT33chuJJG9laQ8fTuGF7lrKmvkd5AzXxe XNIJJK vieboPdsNqc52rxOHh41qZ7Lk0BeFOI3QdgPfRzdllO5v 9DK5Oue9WsRk8Zh O3rrv4rHxVpaVn r3pvfTOy=w631 h355

বাংলাদেশে জিনিসপত্রের দাম দিন দিন বেড়েই চলেছে |

কাঁচাবাজার থেকে একটি পরিবারে যা যা কিনতে হয়, তার প্রায় সবকিছুর দামই আরেক দফা বেড়েছে। এ তালিকায় যেমন চাল, ডাল, তেল, চিনি, আটা আছে, তেমনি রয়েছে সবজি, ডিম ও মুরগির দাম। পিছিয়ে নেই মাছ ব্যবসায়ীরাও। তাঁরাও দাম বাড়িয়েছেন। 

সবজির দামের হিসাবটি টিসিবির তালিকায় নেই। তবে ঢাকার মহাখালী, মালিবাগ, মগবাজার, মিরপুর ১ নম্বর সেকশনের কাঁচাবাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বেশির ভাগ সবজি প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এই দর এক সপ্তাহ আগের তুলনায় কেজিপ্রতি গড়ে ১০ টাকা বেশি। কাঁচা মরিচের কেজি ছাড়িয়েছে ২৫০ টাকা। ব্যবসায়ীরা মাছের দাম গড়ে ২০ টাকা বেশি চাইছেন।


মূল্যবৃদ্ধির হার কেমন, তা দেখা যাক চালের ক্ষেত্রে। টিসিবি বলছে, মোটা চাল ২ টাকা এবং মাঝারি ও সরু চাল প্রতি কেজি ৩ টাকা করে বেড়েছে। বাজারে এখন আর ৫০ টাকা কেজির নিচে চাল নেই। মাঝারি চাল প্রতি কেজি ৫৩ থেকে ৫৮ টাকা এবং সরু চাল ৬৫ থেকে ৭৮ টাকায় কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের।


এক সপ্তাহের চিত্রে চালের বাজারের পরিস্থিতি পুরোটা উঠে আসে না। টিসিবির হিসাবে, ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি বাজারে প্রতি কেজি মোটা চালের সর্বনিম্ন দাম ছিল ৩০ টাকা। সেই হিসাবে এখন দাম প্রায় ৬৭ শতাংশ বেশি।


অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল গত বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়লে সব জিনিসেরই দাম বেড়ে যায়। এতে গরিব মানুষের ওপর প্রভাব পড়ে এবং মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে যায়। এটা স্বাভাবিক। তবে সরকার বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। গরিব ও সীমিত আয়ের মানুষকে স্বস্তি দিতে কিছু উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।


জ্বালানি মন্ত্রণালয় ৫ আগস্ট রাতে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারপ্রতি ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা, পেট্রলের দাম ৪৪ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা ও অকটেনের দাম ৪৬ টাকা বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা নির্ধারণ করে। এরপরই বেড়েছে বাস ও ট্রাকভাড়া।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার আগের দিনের (৪ আগস্ট) সঙ্গে টিসিবির গতকালের বাজারদরের তালিকার তুলনা করলে দেখা যায়, খোলা আটা ও ময়দা কেজিতে তিন টাকা, বোতলজাত সয়াবিন লিটারে ৫ টাকা, চিনি ২ টাকা, মোটা দানার মসুর ডাল কেজিপ্রতি ১০ টাকা, দেশি রসুন ১০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ২০ টাকা ও ডিম হালিতে ১৩ টাকা বেড়েছে।


কোনো কোনো ক্ষেত্রে দেখা গেছে, টিসিবির তালিকায় উল্লিখিত দরের চেয়ে বাজারে পণ্যের দাম বেশি। পাঁচটি বাজার ঘুরে কোথাও ৫০ টাকা কেজিতে চাল পাওয়া যায়নি। মোটা চাল আসলে বিক্রি হচ্ছে ৫২ থেকে ৫৩ টাকা কেজি দরে।


ব্যবসায়ীরা বলছেন, সব পণ্যের দামের সঙ্গেই ট্রাকভাড়া যুক্ত। জ্বালানির দাম বাড়ার পর ট্রাকভাড়া ২০ থেকে ২৫ শতাংশ বেড়েছে। এর সঙ্গে পণ্যভেদে নানা কারণও রয়েছে, যা দাম বাড়িয়েছে।


বাজারে এখন চড়া দামের দুটি পণ্য ডিম ও মুরগির উদাহরণ দেওয়া যাক। মুদিদোকানে ফার্মের মুরগির প্রতি হালি ডিম ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা সাধারণত ৩২ টাকার আশপাশে থাকে। ব্রয়লার মুরগি বাজারভেদে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১৮০ থেকে ২০০ টাকা দরে, যা সাধারণত ১৫০ টাকার নিচে থাকে।


আরো পড়ুন:


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here