2021


আরও উত্তাপ ছড়ালেন সানি লিওনি। তাঁর বিতর্কিত গানের ভিডিয়ো ‘মধুবন’ ঘিরে বিক্ষোভে উত্তাল মুম্বইয়ের এম জি রোড। জ্বালিয়ে দেওয়া হল ‘আইটেম গার্ল’-এর পোস্টার।

হিন্দুদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছে অশ্লীল ভিডিয়ো ‘মধুবন’-এই অভিযোগ তুলে পথে নেমেছিলেন অন্তঃরাষ্ট্রীয় হিন্দু পরিষদ এবং রাষ্ট্রীয় বজরং দলের সদস্যরা। এম জি রোডের সুরসদন মোড়ে জমায়েত করে তুমুল বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় অভিনেত্রীর পোস্টারে। গানটিকে নিষিদ্ধ করার পাশাপাশি হরিপর্বত থানায় সানির বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেন আন্দোলনকারীরা।

একটি রিমেক গানের ওই ভিডিয়ো নিয়ে গত রবিবারই সোচ্চার হয়েছিলেন মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র। হিন্দুধর্মে আঘাত হানার অভিযোগ এনে ‘অশ্লীল’ ভিডিয়োটিকে অবিলম্বে সরিয়ে নিতে বলেন তিনি। অন্যথায় সানি ও মিউজিক ভিডিয়ো সংস্থার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছিলেন বিজেপির মন্ত্রী। সেই রাতেই তড়িঘড়ি মিউজিক ভিডিয়ো সংস্থা ‘সারেগামা’ বিবৃতি দেয়— গানের নাম ও কথা পাল্টে দেওয়া হবে। সমস্ত প্ল্যাটফর্মে খুব শিগগিরই গানটির একটি নতুন ভিডিয়ো প্রকাশিত হবে বলে আশ্বাস দেন সংস্থার কর্তৃপক্ষ।


সামুদ্রিক কাঁকড়া খেয়ে গত এক বছরে ভারতের দিঘায় মৃত্যু হয়েছে চার পর্যটকের। এরমধ্যে গত দুই মাসেই প্রাণ হারায় দুইজন। এতে এই খবরে উদ্বিগ্ন দেশটির পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন।

দেশটির সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, চার পর্যটকের মৃত্যু  শুধুমাত্র অ্যালার্জির কারণে না খাবারের গুণগত মানও দায়ী  তা জানতে খাদ্য দফতরের কর্মকর্তারা তদন্তে নেমেছে। 

এরই মধ্যে আজ বুধবার সকালে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে দিঘার হোটেল এবং রেস্তরাঁয় অভিযান চালিয়েছেন খাদ্য দফতরের কর্মকর্তারা। 

দিঘার প্রতিটি স্টলে গিয়ে তাঁরা খাবারের মান পরীক্ষা করেন। ফ্রিজে রাখা সামগ্রীর গুণগত মানও পরীক্ষা করা হয়। খাদ্য দফতরের এমন ঝটিকা অভিযানে কিছুটা চমকে যান হোটেল এবং রেস্তরাঁ ব্যবসায়ীরা।

ওই অঞ্চলের খাদ্য নিরাপত্তা কর্মকর্তা মণিকা সরকার বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিপুল সংখ্যক পর্যটক ভিড় জমান দিঘায়। তাদের সুরক্ষার দিকটি খতিয়ে দেখতেই খাদ্য দফতর অভিযান শুরু করেছে। 


যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক রাজ্যে এবং ইউরোপে নতুন করে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় বিশ্বব্যাপী বিমান চলাচলে বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছে। ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার কারণে এই অচলাবস্থার মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র উপসর্গহীন রোগীদের আইসোলেশন মেয়াদ কমিয়ে অর্ধেক করার ঘোষণা দিয়েছে।

গত শুক্রবার থেকে বিশ্বব্যাপী প্রায় ১১ হাজার ৫শ’ ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে , বছরের এই ব্যস্ততম সময়ে হাজার হাজার ফ্লাইট বিলম্বিত হয়েছে। বিভিন্ন এয়ারলাইনস জানায়, ওমিক্রন ভেরিয়ান্টের সংক্রমণের কারণে এয়ারলাইন্সে তাদের কর্মী সংকট দেখা দিয়েছে। সোমবার বিশ্বব্যাপী ৩ হাজার ফ্লাইট বাতিল হয়েছে, ফ্লাইট ট্যাকার ‘ফ্লাইট এ্যওয়ার’ এর হিসাবে মঙ্গলবার আরো ১ হাজার ১শ’ ফ্লাইট বাতিল হচ্ছে।

আরো বেশী লোককে দ্রুত কাজে ফিরিয়ে আনার পথ খুলে দিতে এবং কর্মী সংকট কমিয়ে আনতে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) উপসর্গবিহীন কোভিড-১৯ রোগীদের ক্ষেত্রে আইসোলেশন মেয়াদ ১০ দিন থেকে কমিয়ে ৫ দিন করার ঘোষণা দিয়েছে। আইসোলেশন ৫ দিন কমানোর কারণে পরবর্তী ৫ দিন অন্যদের সামনে যেতে মাস্ক পড়তে হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, কিছু মার্কিন হাসপাতাল ‘উপচে’ পড়তে পারে, তবে সর্বশেষ এই ঢেউ মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত, আমেরিকানদের “আতঙ্কিত” হওয়ার প্রয়োজন নেই।

রাজ্যের গভর্নর এবং স্বাস্থ্য উপদেষ্টাদের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল বৈঠকে বাইডেন বলেন, ওমিক্রনের দ্রুত বিস্তার কোভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়ার প্রাথমিক পর্যায় অথবা এ বছর ডেল্টা ছড়িয়ে পড়ার সময়ের মতো ক্ষতিকর হবে না।

তিনি বলেন, ওমিক্রন উদ্বেগের উৎস, তবে এটি আতঙ্কের উৎস হওয়া উচিত নয়।

যুক্তরাষ্ট্রে গত বছর জানুয়ারিতে দৈনিক সংক্রমণ আড়াই লাখে দাঁড়িয়েছিল, বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশটিতে মহামারিতে ৮ লাখ ১৬ হাজারের বেশী লোকের মৃত্যু হয়েছে।


সাত বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে। টিভি দেখানোর নাম করে নির্যাতিতা নাবালিকাকে ওই যুবক নিজের বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। সেখানেই নাবালিকার উপর অত্যাচার চালানো হয়। বুধবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে হুগলি জেলার পাণ্ডুয়ার দ্বারবাসিনী এলাকায়। অভিযুক্ত যুবককে বুধবার রাতেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

স্থানীয় এবং পুলিশ সূত্রে খবর, বুধবার সন্ধ্যায় নাবালিকার মা-বাবা দু’জনেই বাড়ির বাইরে ছিলেন। সে সময় প্রতিবেশী যুবক সুজন বাউল দাস ওই নাবালিকার বাড়িতে আসেন। টিভি দেখাবেন বলে নাবালিকাকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান। অভিযোগ, বাড়িতে নিয়ে গিয়ে সাত বছরের মেয়েটির উপর যৌন নির্যাতন চালান অভিযুক্ত। যন্ত্রণায় কাতর নাবালিকার চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে আসেন। তাঁরা নাবালিকার বাবা-মাকে খবর দেন। ঘটনার পর নির্যাততাকে প্রথমে পান্ডুয়া গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁকে পাঠানো হয় চুঁচুড়া ইমামবাড়া জেলা হাসপাতালে। বর্তমানে সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছে নির্যাতিতা।

নির্যাতিতার মামা পাণ্ডুয়া থানায় অভিযুক্ত সুজন বাউল দাসের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন। রাতেই তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তও শুরু করেছে পুলিশ। এই ঘটনার নিন্দা করে অভিযুক্তের শাস্তির দাবি করেছেন পাণ্ডুয়া পঞ্চায়েত সমিতির খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ বিরাজ চৌধুরী। নির্যাতিতাকে দেখতে হাসপাতালেও যান তিনি।

পা থেকে মাথা পর্যন্ত সৌন্দর্য বাড়াতে তরুণ-তরুণীরা বিভিন্ন বিউটি সেলুনগুলোতে ছুটে থাকেন। এমনই এক তরুণী বিউটি পার্লারে গিয়েছিলেন তার পায়ের যত্ন নিতে।

সেখানে গিয়ে তিনি পেডিকিওর করাবেন বলে বিউটিশিয়ানদের জানান।  পেডিকিওর করার সময় হঠাৎ তার এক পা কেটে যায়। পায়ে জীবাণুর সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। এতে তার শিরাগুলোতেও ব্লক হয়ে যায়। অনেক দিন  ভোগার পর তিনি চিকিৎসককের কাছে যান। সেখানকার চিকিৎসক ওই নারীকে পা কেটে ফেলার পরামর্শ দেন।

এ ঘটনাটি ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায়।

ওই নারী ফ্লোরিডার বাসিন্দা ক্লারা শেলম্যান। তিনি ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে ফ্লোরিডায় টাম্পা এলাকার ট্যামি’স নেইলস টু নামে এক পার্লারে গিয়ে এ দুর্ঘটনা শিকার হন।  

জানা গেছে, পেডিকিওরের সময় সেখানকার কর্মীর অসচেতনতার জন্য ক্লারার পা কেটে যায়। পরে সেখানে সংক্রমণ দেখা দেয়। ক্লারার আগে থেকেই পেরিফেরাল আর্টেরিয়াল ডিজিজ (পিএডি) থাকায় সংক্রমণ খুব দ্রুত তার পায়ে ছড়িয়ে পড়ে। পেরিফেরাল আর্টেরিয়াল ডিজিজের ক্ষেত্রে পায়ের মধ্যে থাকা শিরাগুলোতে ব্লক হয়ে যায়। ফলে পা সচল রাখার জন্য যে, পরিমাণ পুষ্টি ও অক্সিজেনের দরকার হয় সেটা হৃদযন্ত্র ও মস্তিষ্ক থেকে পায়ে পৌঁছায় না। পায়ের পেশি ও স্নায়ুগুলো সঠিকভাবে কাজ করতে পারে না।  কয়েক মাসের মধ্যে সংক্রমণ এত বেশি ছড়িয়ে পড়ে যে ক্লারার পা চিকিৎসকরা কেটে ফেলতে বাধ্য হয়।  

এদিকে এক পেডিকিওরের কারণে জীবন বদলানোর প্রায় তিন বছর পর ট্যামি’স নেইলস টু প্রথমে ওই ঘটনার দায় নিতে অস্বীকার করে। পরে ভুলের কারণে এ দুঃখজনক ঘটে বলে নিজেদের দোষ স্বীকার করে প্রতিষ্ঠানটি। পরে ভুক্তভোগী ক্লারাকে ১৭ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ দেয় ওই পার্লারটি।  

নিজস্ব প্রতিনিধি: সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘অশ্লীল’ ছবি ও ভিডিও সরানোর জন্য ফের পরীমণিকে আইনি নোটিশ। নোটিশ পাঠিয়েছেন যৌথভাবে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খন্দকার হাসান শাহরিয়ার এবং ঢাকা জজ কোর্টের আইনজীবী ইসমাতুল্লাহ লাকী তালুকদার।

এবার এই নোটিশের পরই কার্যত অসুস্থ হয়ে পড়েন ঢাকা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমণি। এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ‘আমি এখনো নোটিশ হাতে পাইনি। পাওয়ার পর এ নিয়ে কথা বলতে পারব। এর আগে আদালত থেকে আমাকে যখন বলা হয়েছিল, তখন ১ ঘণ্টার মধ্যে ছবিগুলো সরিয়ে ফেলি। এখন যে ভিডিওর কথা বলা হয়েছে, সেগুলো আমি শেয়ার করিনি। বরং আমার ব্যক্তিগত ভিডিও অন্য কেউ ফেসবুকে দিয়েছে। নোটিশ হাতে না পেলেও বিভিন্ন গণমাধ্যমে আজকের খবরটি পেয়েছি। দেখে আমি অসুস্থ হয়ে পড়েছি। এমন অত্যাচারের মানে হয় না।’

পরীমণি আরও বলেন, ‘আমার ফেসবুক তো সবার জন্য খোলা। একটু দেখে নিন আর তারপর বলুন আমার পেজে ঠিক কোন ভিডিওটা অশ্লীল। আমার পেজে এমন কোনো ভিডিও নেই যেটা সরাতে হবে। যদি সরাতেই হয় তাহলে আমাকে অপমান করে যারা ভিডিও বানিয়েছে, তাদের সরাতে হবে। ফেসবুক সম্পর্কে আগে তো জানতে হবে তাদের।’

উল্লেখ্য, এই ঘটনার সূত্রপাত ১লা সেপ্টেম্বর। মাদক মামলায় জেল থেকে জামিনে মুক্তি পাওয়ার পরই প্রকাশ্যে আসেন তিনি। সেখানে গাড়ি থেকে অনুগামীদের উদ্দেশ্যে হাত নাড়াতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। কিন্তু ভালো ভাবে লক্ষ করলে দেখা যাবে সেই সময় তাঁর হাতে লেখা ছিল ‘ডোন্ট লাভ মি বিচ’। পরবর্তীতে ১৫ই সেপ্টেম্বর ফের আদালতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে, ওইদিন ও তাঁর হাতের তালুতে লেখা ছিল অশ্লীল কথা। শুধু এখানেই শেষ নয়। নিজের ৩০ তম জন্মদিন উপলক্ষে ঢাকার হোটেল রেডিসন ব্লুতে উন্মাদের মত নাচতে দেখা গিয়েছে তাঁকে, সেই ভিডিও ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। তবে পরীমণির কথায় জন্মদিনের এতদিন পর হঠাৎ আজ এ বিষয়টি কেন তুলে আনলেন ওই দুই আইনজীবী? তাঁর কথায় যারা তাঁকে ঘিরে ভিডিও তৈরি করেছেন তাঁদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেবেন পরী।

উত্তর আফ্রিকার দেশ সুদানে সোনা খনি ধসে কমপক্ষে ৩৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কয়েকজন। মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর) দেশটির পশ্চিম খোরদোফান প্রদেশের একটি পরিত্যক্ত সোনার খনি ধসে পড়লে প্রাণহানির এই ঘটনা ঘটে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এপি।

সুদানের রাষ্ট্র পরিচালিত খনি কোম্পানি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, রাজধানী খার্তুম থেকে ৭০০ কিলোমিটার (৪৩৫ মাইল) দক্ষিণে ফুজা গ্রামে মঙ্গলবার একটি পরিত্যক্ত খনি ধসে পড়েছে। এতে অনেকেই আহত হয়েছেন বলা হলেও এর সুনির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা তারা জানায়নি।


ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সামান্থা রুথ প্রভু। ব্যবসাসফল সিনেমা উপহার দিয়ে দর্শক মনে জায়গা করে নিয়েছেন। সিনেমার পাশাপাশি ব্যক্তিগত নানা কারণে বছরজুড়েই আলোচনায় ছিলেন এই অভিনেত্রী।

ওয়েব সিরিজ নিয়ে বিতর্ক: হিন্দি ভাষার ‘ফ্যামিলি ম্যান-টু’ ওয়েব সিরিজে অভিনয় করে আলোচনায় আসেন সামান্থা রুথ প্রভু। এতে তার অভিনয় নজর কাড়লেও তার চরিত্রটি নিয় বিতর্কও হয়। ওয়েব সিরিজটিতে একজন তামিল বিদ্রোহী হিসেবে দেখানো হয়েছে, যার সঙ্গে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর যোগাযোগ আছে। এখানেই শেষ নয়, এই অভিনেত্রীর পোশাকের সঙ্গে লিবারেশন টাইগার্স অব তামিল ইলম-এর ইউনিফর্মের মিল খুঁজে পেয়েছেন কেউ কেউ। এরপর এটি নিয়ে আপত্তি তোলে তামিলনাড়ু সরকার। এটির মুক্তি বন্ধ করতে কেন্দ্রীয় সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরের কাছে চিঠিও পাঠানো হয়। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও এটি নিষিদ্ধে দাবি জানানো হয়। চিঠিতে তামিলনাড়ু সরকার দাবি করে, ‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান টু’ ওয়েব সিরিজে লিবারেশন টাইগার্স অব তামিল ইলমের যোদ্ধাদের অপমান করা হয়েছে। এছাড়া এতে উল্লেখ করা হয়, এই ওয়েব সিরিজ ‘নিন্দনীয়’ ও ‘বিদ্বেষমূলক’।

নাগা চৈতন্যের সঙ্গে ডিভোর্স: ২০১০ সালে তেলেগু ভাষার ‘ইয়ে মায়া চেসাভ’ সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করেন নাগা চৈতন্য ও সামান্থা। সিনেমার সেটেই তাদের প্রথম পরিচয়। তারপরই প্রেমের সম্পর্কে জড়ান তারা। এরপর লুকিয়ে দীর্ঘদিন প্রেম করেন এই জুটি। ২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। অনেক জল্পনার অবসান ঘটিয়ে গত ২ অক্টোবর ডিভোর্সের ঘোষণা দেন নাগা চৈতন্য ও সামান্থা।

গর্ভপাত নিয়ে গুঞ্জন: সামান্থা-নাগার ডিভোর্সের কারণ নিয়ে নানা গুঞ্চন শোনা গেছে। এই অভিনেত্রী গর্ভপাত করেছেন বলেও খবর চাউর হয়। তবে এসব গুজব উড়িয়ে দেন এই অভিনেত্রী। তিনি জানান, ব্যক্তিগত সংকটের সময় আপনাদের কষ্ট আমাকে আবেগাপ্লুত করেছে। আমার জন্য সহানুভূতি, উদ্বেগ দেখানো এবং আমাকে নিয়ে যে মিথ্যা গুঞ্জন ছড়াচ্ছে তা প্রতিহত করার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। তারা বলছে, আমার অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে, বাচ্চা নিতে চাইনি, সুযোগ সন্ধানী, আর এখন বলছে আমি গর্ভপাত করিয়েছি। ডিভোর্স খুবই কষ্টদায়ক একটি ব্যাপার। আমাকে এটি থেকে সেরে ওঠার সময় দিন। আমাকে প্রতিনিয়ত ব্যক্তিগত বিষয়ে আক্রমণ করা হচ্ছে। কিন্তু আমি প্রতিজ্ঞা করছি, আমি এগুলো কখনো মেনে নিবো না এবং আমাকে ভাঙার জন্য যা করছে তা সফল হতে দিবো না।

মানহানির মামলা: অভিনেত্রী সামান্থা রুথ প্রভু। নাগা চৈতন্যের সঙ্গে তার বিচ্ছেদের কারণ নিয়ে শোবিজ অঙ্গনে কানাকানি কম হয়নি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকে বিদ্রূপও করেছেন। এজন্য একজন অ‌্যাডভোকেট ও কয়েকটি ইউটিউব চ‌্যানেলের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন সামান্থা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কটূক্তি: ডিভোর্সের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে নাগার সকল ছবি মুছে ফেললেন ‘রাঙ্গাস্থালাম’ সিনেমাখ্যাত এই অভিনেত্রী। এটি নিয়ে পরবর্তী সময়ে নাগা চৈতন্যের ভক্তদের রোষানলে পড়েন সামান্থা। তাকে নানাভাবে কটূক্তি করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

মুম্বাই পাড়ি দেওয়া নিয়ে গুঞ্জন: বেশ কিছুদিন ধরে গুঞ্জন উড়ছে, হিন্দি প্রজেক্টে নিয়মিত কাজ করতে চাইছেন সামান্থা। এজন্য মুম্বাইয়ে বাড়ি নিয়েছেন। সেখানেই স্থায়ী হতে চান তিনি। যদিও এই গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে সামান্থা বলেন, ‘আমি জানি না কোথা থেকে এসব গুজব ছড়াচ্ছে। অন্য গুঞ্জনগুলোর মতো এটিও মিথ্যা। হায়দরাবাদ আমার বাড়ি এবং এটিই আবার বাড়ি থাকবে। হায়দরাবাদ আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। এখানেই সুখে শান্তিতে থাকতে চাই।’

আইটেম গানে আপত্তি: প্রথমবারের মতো আইটেম গানে কোমর দুলিয়েছেন সামান্থা। ‘পুষ্পা: দ্য রাইজ’ সিনেমার ‘ও আন্তাভা, ও ও আন্তাভা’ শিরোনামের এই গান নিয়ে আপত্তি তোলে অন্ধ্র প্রদেশের একটি পুরুষদের সংস্থা। তাদের অভিযোগ, এই গানে পুরুষদের বিকৃত মানসিকতার এবং যৌন পিপাসু হিসেবে দেখানো হয়েছে।

‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান ২’-এ যৌনদৃশ্য, ‘পুষ্পা’-য় আইটেম গান— বিগত কয়েক মাসে পর্দায় ছক ভেঙেছেন সামান্থা প্রভু। ব্যতিক্রম ঘটেনি বাস্তবেও।

কাজ থেকে ছুটি নিয়ে আপাতত গোয়ায় ছুটি কাটাচ্ছেন সামান্থা। আর তাঁর সেই অবসর যাপনের ছবি দেখে চক্ষু চড়কগাছে অনুরাগীদের। সেখানে দেখা যাচ্ছে, জলের মধ্যে স্নানপোশাক পরে গায়ে রোদ মেখে নিচ্ছেন ‘ফ্যামিলি ম্যান’-এর রাজি। তাঁর হাসি যেন থামতেই চাইছে না। রংবাহারি স্নানপোশাকে চেনা ছকের কিছুটা বাইরে তিনি। সেই মুহূর্তই লেন্সবন্দি করে ভাগ করে নিলেন অনুরাগীদের সঙ্গে।

সচরাচর এ রকম খোলামেলা পোশাকে খুব একটা ধরা দেন না সামান্থা। কিন্তু পেশাগত পরিসরের সঙ্গেই পরিবর্তন আনছেন ব্যক্তিজীবনেও।

সম্প্রতি, 'দ্য কপিল শর্মা শো'-তে 'জার্সি' ছবির প্রচার সারতে হাজির হয়েছিলেন শাহিদ কাপুর এবং ম্রুণাল ঠাকুর। অনুষ্ঠান চলাকালীন মঞ্চের মাঝেই 'জার্সি'র একাধিক চুম্বন দৃশ্য নিয়ে শাহিদের সঙ্গে খুনসুটিতে মেতে উঠলেন কপিল।

ছবিতে এই চুম্বন দৃশ্যের কথায় নিজের চিরাচরিত মজাদার ভঙ্গিতে শাহিদের উদ্দেশে কপিল বলে উঠলেন ' রেসপিরেটরি থেরাপি'-র মাধ্যমে নিজের বহু ছবির নায়িকার মুখে অক্সিজেন পুরে দিয়েছেন এই বলি-তারকা। বলি-তারকার উদ্দেশে এরপর তাঁর প্রশ্ন, 'এই যে আপনি এই সমাজসেবামূলক কাজকর্মগুলো করেন তা শুধুই স্ক্রিপ্ট এর নির্দেশে নাকি নিজের মনের ডাকে?' হাসতে হাসতে শাহিদের জবাব, 'দ্যাখো, ব্যাপারটা হল মুখ দিয়েই 'এই কাজটা' করে থাকি, কিন্তু তার সঙ্গে খানিকটা মনের ডাকও থাকে আর কী।

নির্মাতা শবনম ফেরদৌসীর প্রথম চলচ্চিত্র ‘আজব কারখানা’। প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন কলকাতার পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও ঢাকার শাবনাজ সাদিয়া ইমি। ৭ জানুয়ারি থেকে অনুষ্ঠিতব্য ২৭তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শন হতে যাচ্ছে ‘আজব কারখানা’। উৎসবের ‘এশিয়ান সিলেক্ট—নেটপ্যাক অ্যাওয়ার্ড’ বিভাগে প্রদর্শনের জন্য মনোনীত হয়েছে ছবিটি। এদিকে ১৫ জানুয়ারি ২০তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবেও দেখানো হবে ছবিটি। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে সরকারি অনুদান পায় ছবিটি। শুটিং হয়েছে ২০১৯ ও ২০২০ সালে। পরমব্রত এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘চলচ্চিত্রটিতে অভিনয় করতে গিয়ে বাংলাদেশের লোকায়ত গান-বাজনার সম্ভার সম্পর্কে জেনেছি। এটা আমার জন্য বিশেষ পাওয়া। ছবিটি আগামী মাসে কলকাতা ও ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শন হবে। সবার কাছে অনুরোধ ছবিটি দেখুন।’ শবনম বলেন, ‘এর মধ্যে  সেন্সর বোর্ডেও ছবিটি জমা দিয়েছি। আশা করছি, সামনের সপ্তাহে ছাড়পত্র হাতে পাব। জানুয়ারির প্রথম অথবা ফেব্রুয়ারির শেষে ছবিটি হলে মুক্তি দেব।’

ঢাকায় এক নারী (৩৩) করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে সংক্রমিত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে চারজন ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেল। গত ২০ ডিসেম্বর এই নারীর নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে করোনাভাইরাসের জিনোমের উন্মুক্ত বৈশ্বিক তথ্যভাণ্ডার জার্মানির গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ অন শেয়ারিং অল ইনফ্লুয়েঞ্জা ডাটাতে (জিআইএসএআইডি) এসব তথ্য জানা গেছে।

আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) ওই নারীর নমুনা সংগ্রহ এবং এসংক্রান্ত তথ্য জিআইএসএআইডির কাছে পাঠিয়েছে।

এর আগে গতকাল সোমবার ৫৬ বছর বয়সী পুরুষের শরীরে ওমিক্রন ধরা পড়ে। রোগী ঢাকায় অবস্থান করছেন। তারও আগে করোনাভাইরাসের নতুন ধরনটি দুজনের শরীরে শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বামী-সন্তান জিম্মি করে কক্সবাজারে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় আরেক অভিযুক্ত ইস্রাফিল হুদা জয়কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

এ ধর্ষণ মামলার ৩ নম্বর আসামি ইসরাফিল হুদা জয়কে মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর) ভোরে অভিযান চালিয়ে চকরিয়ার বাস টার্মিনাল থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে জানিয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন।

গ্রেফতারকৃত জয় কক্সবাজার শহরের শফিউদ্দীনের ছেলে ও ঘটনার মূল হোতাদের একজন।

মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মুসলিম বলেন, এ পর্যন্ত মূল অভিযুক্ত আশিকসহ এজাহারনামীয় তিনজন এবং ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আরও তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় গ্রেফতার জিয়া গেস্ট ইন ম্যানেজার রিয়াজ উদ্দিন ছোটন ৪ দিন এবং অন্য ৩ আসামি দুই দিনের রিমান্ডে রয়েছে।

দুই দিনের রিমান্ডে থাকা আসামিরা হলেন- কক্সবাজার শহরের দক্ষিণ বাহারছড়া এলাকার রেজাউল করিম শাহাবুদ্দিন (২৫), চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারার উলুবনিয়া এলাকার মামুনুর রশীদ (২৮) ও কক্সবাজার শহরের পশ্চিম বাহারছড়া এলাকার মেহেদী হাসান (২১)।

এদিকে, এ মামলায় এখন পর্যন্ত ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রবিবার মাদারীপুর থেকে র‍্যাব গ্রেফতার করে মামলার প্রধান আসামি আশিকুল ইসলাম আশিককে। এর আগে ঘটনার পরদিনই র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার হন মামলার এজাহারভুক্ত আরেক আসামি হোটেল জিয়া গেস্ট ইনের ব্যবস্থাপক রিয়াজ উদ্দিন ছোটন।

ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, গত ২২ ডিসেম্বর শহরের কবিতা চত্বর রোড সংলগ্ন এক ঝুপড়ি ঘরে আটকে রেখে তাকে ধর্ষণ করা হয়। পরে সেখান থেকে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় হোটেল-মোটেল জোনের জিয়া গেস্ট ইন নামের আবাসিক হোটেলে। দ্বিতীয় দফায় সেখানেও তিনি ধর্ষণের শিকার হন। এ ঘটনায় ২৩ ডিসেম্বর চারজনের নাম উল্লেখ করে ও দু-তিনজনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা করেন ভুক্তভোগীর নারীর স্বামী।

এদিকে রাজধানীর কাওরান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সোমবার আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, ধর্ষণের শিকার পর্যটক তার হৃদরোগে আক্রান্ত আট মাসের শিশুর চিকিৎসার জন্য দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ জোগাতে স্বামী-সন্তানসহ কক্সবাজারে যান। পর্যটকদের কাছ থেকে অর্থ জোগানোর বিষয়টি জেনে তাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন ধর্ষক আশিক ও তার সহযোগীরা। এ অর্থ না দেওয়ায় ধর্ষণের শিকার হন ওই নারী।

মামলার তদন্তের দায়িত্ব পাওয়া সংস্থা ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন জানান, মাদারীপুরে র‍্যাবের হাতে ধৃত ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি আশিককে আমাদের কাছে হস্তান্তর করার জন্য আদালতে আবেদন করা হয়েছে।

ঝালকাঠির লঞ্চ ট্রাজেডিতে সোমবার ভেসে ওঠা একটি লাশ নিয়ে দাবি করেছিল দুই পক্ষ। তবে শেষ পর্যন্ত বিরোধের নিষ্পত্তি ঘটেছে।

সোমবার থেকে ঘটনাস্থল ও আশেপাশের নদীতে লাশ ভেসে ওঠতে শুরু করেছে। এখন পর্যন্ত তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, আগুন থেকে বাঁচার জন্য অনেকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থাতেই নদীতে ঝাঁপ দিয়েছিলেন। তাদের লাশই এখন ভেসে ওঠছে।

সর্বশেষ ঝালকাঠির বিশখালীর নদীর সাচিলাপুরে অজ্ঞাত কিশোর (১৩) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ২টার সময় ফায়ার সার্ভিস ও কোস্টগার্ড স্থানীয় লোকদের কাছ থেকে মোবাইল ফোনে খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে। লাশটির দেহ অর্ধপোড়া ছিল এবং গায়ে কালো রংয়ের সোয়েটার ও জিন্সের প্যান্ট ছিল।

এর আগে মঙ্গলবার সকাল ৯টায় ঝালকাঠির লঞ্চঘাট-সংলগ্ন মাঝনদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের (৩২) লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। এই যুবকের মুখমণ্ডল পোড়া ছিল এবং অফ হোয়াইট শীতের পোশাক ও জিন্সের প্যান্ট পরা ছিল জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন মাস্টার ডিএডি শফিক । লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে লঞ্চ ট্রাজেডির ঘটনায় এই নিয়ে নিখোঁজ তিনজনের লাশ উদ্ধার হলো।

এদিকে ঝালকাঠির বিষখালী নদী থেকে সোমবার উদ্ধার হওয়া যুবকের লাশটি দাবি করে দুই পক্ষ। এক পক্ষের দাবি, উদ্ধার হওয়া ব্যক্তির নাম মো. শাকিল মোল্লা। তিনি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার ইসদাইর গ্রামের মৃত শফি উদ্দিন মোল্লার ছেলে। আগুনে পুড়ে যাওয়া অভিযান-১০ লঞ্চের সহকারী বাবুর্চি ছিলেন তিনি। ফেসবুকে ছবি দেখে বোন সাহিদা আক্তার নিশা ভাইয়ের লাশ শনাক্ত করেন।

এদিকে আরেক পক্ষের দাবি, ওই যুবক বরগুনা সদরের বুড়িরচর ইউনিয়নের বড় লবণগোলা গ্রামের হাকিম শরীফ। তিনি ঢাকার এসএমডি কোম্পানিতে নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ করতেন। হাতের আংটি ও পোশাক দেখে হাকিম শরীফের বড় ভাই আবদুল মোতালেব শরীফ লাশ শনাক্ত করেন। ফেসবুকে লাশ উদ্ধারের খবর ও ছবি দেখে সেটি তার ভাইয়ের বলে দাবি করেন তিনি। দুই পক্ষের দাবির কারণে উদ্ধার হওয়া লাশ হস্তান্তর নিয়ে বিপাকে প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বলেন, যেহেতু দুই পক্ষ উদ্ধার হওয়া যুবকের লাশ তাদের স্বজনের বলে দাবি করছেন। এ কারণে উভয় পক্ষের লোকজন আসার পর তাদের দেখানো হবে, উপযুক্ত প্রমাণের পর লাশ হস্তান্তর করা হবে। সেটা করা সম্ভব না হলে ডিএনএ পরীক্ষা করে হস্তান্তর করা হবে। তবে পুলিশ শেষ পর্যন্ত মধ্য রাতে এ লাশটির নারায়ণগঞ্জের শাকিল মোল্লার (৩৪) বলে নিশ্চিত হয়ে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে। শাকিল মোল্লা নারায়ণগঞ্জের শফিউদ্দিন মোল্লার পুত্র ও পেশায় সহকারী বাবুর্চি। আগুনে পুড়ে যাওয়া অভিযান-১০ লঞ্চের সহকারী বাবুর্চি ছিলেন তিনি।

সোমবার রাতে লঞ্চের তদন্ত কাজে ও আলামত সংগ্রহ করে প্রাথমিকভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা করছে সিআইডি। সিআইডির এএসপি পদ মর্যাদার অরিদ সরকারের নেতৃত্বে একটি টিম। মৃতের আলামত সংগ্রহ করে নিখোঁজদের সঠিক পরিবারের কাছে হস্তান্তরের জন্য দলে ডিএনএ বিশেষজ্ঞও রয়েছে। এই দুর্ঘটনায় আগুনে ব্যাপকভাবে পুড়ে যাওয়ায় অনেকের লাশ তার পরিবারের পক্ষে শনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। সেজন্যই এ টিমটি পুলিশকে সহযোগিতা করতে এসেছে। উদ্ধারকৃত লাশগুলোতে কমবেশি দগ্ধ হওয়ার চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হয়, শরীরে আগুন ধরে গেলে বাঁচার জন্য নদীতে ঝাঁপ দেয়ার পর নিখোঁজ ছিল।

এদিকে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিখোঁজ ব্যক্তিদের তালিকা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। বরগুনার জেলা প্রশাসন থেকে ঝালকাঠি জেলা প্রশাসনে পাঠানো তালিকা অনুযায়ী এখনো নিখোঁজ আছেন ৩৩ জন। আর ঝালকাঠি যুব রেড ক্রিসেন্টের তালিকা অনুযায়ী নিখোঁজ রয়েছেন ৫১ জন। আবার ঝালকাঠি জেলা পুলিশের তালিকায় নিখোঁজ আছেন ৪০ জন।

পুলিশের কন্ট্রোল রুমের হিসাব অনুযায়ী নিখোঁজ ব্যক্তিদের স্বজনরা নিখোঁজ হিসেবে ৪১ জনের নাম দিয়েছে।

৫৭-তে পা দিলেন বলিউড সুলতান সালমান খান। এই সুপারস্টারের রোমান্টিক ছবির বেশিরভাগই ব্যবসাসফল। তবে তার অ্যাকশনধর্মী ছবিগুলোই সবচেয়ে বেশি আলোড়ন তুলেছে বলে মনে করেন অনেকে।

বলিউডি ইন্ডাস্ট্রিতে ৩২ বছরের বেশি সময়ের ক্যারিয়ারে নিয়মিতই বক্স অফিসে ঘূর্ণিঝড় তুলেছেন সালমান খান। এখনও তুলছেন। এক কথায় গত তিন দশকে বলিউডের সবচেয়ে সফল তারকাদের একজন তিনি। তিন খানের মধ্যে অন্যতম।

জনপ্রিয় সব সিনেমা উপহার দেওয়ার মধ্যেই বেশ কয়েকটি রেকর্ড গড়েছেন সালমান খান, যা বলিউডের আর কোনো অভিনেতার নেই।

১) একটানা ১৫টি ১০০ কোটির বেশি আয় করা সিনেমা উপহার দিয়েছেন সালমান, যা বলিউডের ইতিহাসে আর কেউ পারেননি। 

২) ৩০০ কোটি রুপি আয়ের ক্লাবেও রয়েছে সালমানের ৩টি সিনেমা। এ অনন্য অর্জনও নেই আর কারও।

৩) ১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সালমান খান অভিনীত ছবি ‘হাম আপকে হ্যায় কৌন’ সিনেমাটি একটি অনন্য রেকর্ড গড়ে। মুক্তির পর সিনেমাটির টিকিট বিক্রি হয়েছিল ৭ কোটি ৪০ লাখের বেশি। হিন্দি সিনেমার ইতিহাসে আর কোনো সিনেমার এতো বেশি টিকিট বিক্রি হয়নি।

৪) শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন সালমান খান। এছাড়া বিভিন্ন বিজ্ঞাপন, শো করার মাধ্যমে অঢেল অর্থের মালিক হয়েছেন। তার মোট সম্পদের পরিমাণ ৩ হাজার কোটির বেশি।  

৫) শুধু বড় পর্দায় নয়; ছোট পর্দা তথা টিভিতে হাজির হয়েও সুপারহিট সালমান খান। যে অর্জনের বলিউডের অনেক সুপারস্টারের নেই। ‘দশ কা দম’, ‘বিগ বস’-এর মতো তুমুল জনপ্রিয় অনুষ্ঠানগুলো সঞ্চালনা করেছেন তিনি। বছরের পর বছর ধরে সালমানের এসব অনুষ্ঠান জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে।

৬) ব্যক্তিগত জীবনে বেশকিছু প্রেমে জড়ালেও বিয়ে করেননি সালমান খান। বলিউড ভাইজান খ্যাত তারকা ৫৭ বছরে এসেও সিঙ্গেল। যে কারণে বলিউডের ‘মোস্ট এলিজেবল’ ব্যাচেলর খেতাবটি এখনও তারই।

দক্ষিণী, বলিউড ও হলিউডের একঝাঁক তারকা নিয়ে চমক দেখাবে এস এস রাজামৌলির ছবি ‘আরআরআর’। বলিউডে এই ছবিকে ঘিরে শুরু থেকেই নানান আলোচনা। ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে নির্মিত তারকাবহুল এই সিনেমাটি মুক্তির আগেই ৯০০ কোটি টাকা আয় করে ফেলেছে।

ট্রেলার মুক্তির পরই ‘বাহুবলী’র রেকর্ড ভেঙেছে আরআরআর। চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞদের মতে, আগামী বছর এই প্যান ইন্ডিয়া ছবি বক্স অফিস কাঁপাবে।

বক্স অফিস রিপোর্ট অনুযায়ী, মুক্তির আগে ‘আরআরআর’ ৮০০ কোটি রুপি আয় করেছে। এর মধ্যে ছবি স্বত্ব বিক্রিসহ গানের আয়ও আছে। এই ছবির মোট বাজেট ৪০০ কোটি রুপি বলে জানা গেছে। উত্তর ভারতীয় স্বত্ব থেকে ছবিটি পেয়েছে ১৩৫ কোটি। হিন্দি ছাড়াও ছবিটি তামিল, তেলেগু, মালয়ালম ও কন্নড় ভাষায় মুক্তি পাবে।

তেলেগু রাইটসের জন্য ছবিটি ১৬৫ কোটিতে বিক্রি করা হয়েছে। কন্নড়, মালয়ালম, বিদেশি স্যাটেলাইট রাইটস, সব মিলে ‘আরআরআর’ ৮০০ কোটির বেশি আয় করেছে, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৯০০ কোটি টাকার বেশি।

‘রুদ্রম রণম রুধিরাম’ অথবা ইংরেজিতে বলা হচ্ছে ‘রাইজ রোর রিভেঞ্জ’ সংক্ষেপে সিনেমাটির নাম ‘আরআরআর’ বা ‘থ্রি আর’। সিনেমাটি নিয়ে এতো আলোচনার কারণ হলো এই সিনেমায় পর্দা কাঁপাবে দক্ষিণী, বলিউড ও হলিউডের একঝাঁক তারকা। সিনেমাটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন— জুনিয়র এনটিআর, রাম চরণ, আলিয়া ভাট, অজয় দেবগন প্রমুখ। পাশাপাশি আছেন রে স্টিভেনসন, অলিভিয়া মরিস, অ্যালিসন ডুডির মতো আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন তারকারাও।

এই ছবিতে কোন তারকা কত রুপি নিয়েছেন, তা ইতিমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে।

জানা গেছে, ‘আরআরআর’ ছবির জন্য সব তারকা চড়া পারিশ্রমিক নিয়েছেন। দক্ষিণের সবচেয়ে দামী তারকাদের মধ্যে রামচরণ, জুনিয়র এন টি আরের নাম শীর্ষে আছে। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামী অল্লুরি সীতারাম রাজুর ভূমিকায় দেখা যাবে রামচরণকে। এই ছবির জন্য এই দক্ষিণি তারকা নিয়েছেন ৪৫ কোটি রুপি। 

এদিকে ‘আরআরআর’ ছবিতে আর এক বিপ্লবী কোমারাম ভীমের চরিত্রে অভিনয় করছেন জুনিয়র এন টি আর। এই বিপ্লবী হায়দরাবাদের নিজামের বিরুদ্ধে বিপ্লব করেছিলেন। জুনিয়র এন টি আরও এই ছবির জন্য একই দর হাঁকিয়েছেন বলে খবর। রাজামৌলির এই প্যান ইন্ডিয়া ছবিতে ক্যামিও হিসেবে দেখা যাবে বলিউড সুপারস্টার অজয় দেবগণকে। এই ছবিতে স্বল্প উপস্থিতির জন্যও বড়সড় দর হাঁকিয়েছেন তিনি।

অজয় ‘আরআরআর’-এর জন্য ২৫ কোটি নিয়েছেন। আর আলিয়া ভাট ‘সীতা’র ভূমিকার জন্য নিয়েছেন ৯ কোটি। এদিকে পরিচালক রাজামৌলি ছবির লাভ থেকে ৩০ শতাংশ নিজের পকেটস্থ করবেন জানা গেছে।

বর্ষীয়ান নির্মাতা এফ আই মানিক শাকিব খানের নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন। এ ঘোষণায় চটেছেন দেশের শীর্ষ নায়ক। সিনে খবর নামক একটি ই-মেইল থেকে তার ঘনিষ্ঠজন পরিচালিত মেইল থেকে জানানো হয়েছে, প্রয়োজনে মামলা করবেন শাকিব।

ই-মেইল বার্তায় শাকিব বলেন, ‘এক সিনিয়র নির্মাতা ঘোষণা দিয়েছেন আমার বায়োপিক নির্মাণ করবেন। অথচ এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। কারও বায়োপিক নির্মাণ করতে গেলে তার অনুমতি নিতে হয়। তিনি কী আমার অনুমতি নিয়েছেন? এটি দেশের মানুষের কাছে আমার ইমেজ নষ্ট করার ষড়যন্ত্র নয় কি? এ ধরনের ষড়যন্ত্র আর মেনে নেওয়া যায় না।

দেশীয় চলচ্চিত্রের কারও বায়োপিক যদি নির্মাণ করতে হয় তাহলে নায়করাজ রাজ্জাক, আলমগীর, ফারুক, সোহেল রানা, ববিতা, শাবানা, কবরীদের মতো কিংবদন্তি শিল্পীদের নির্মাণ করা উচিত। আমাকে নিয়ে কেন?’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি বেশ কিছুদিন ধরে আমার দেশে না থাকার সুযোগে চলচ্চিত্রজগতের কেউ কেউ আমাকে নিয়ে অনাকাক্ষিতভাবে মিডিয়ায় বিভ্রান্তিমূলক কথাবার্তা ছড়াচ্ছেন। এর মধ্যে আরেক নির্মাতা আমার বিদেশে যাওয়া, সেখানে বসে ছবির কাজ করা নিয়ে মিডিয়ার কাছে অনভিপ্রেত কথা বলেছেন। যা অন্যকে অন্যায়ভাবে আক্রমণ করা ছাড়া আর কিছুই নয়।

আমি এ ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়ে বলতে চাই যারা আমাকে নিয়ে ষড়যন্ত্রের জাল বিছাতে চাইবে তাদের বিরুদ্ধে আমি আইনি ব্যবস্থা নেব। মানহানি ও সাইবার ক্রাইম অ্যাক্টে মামলা করব। ইতিপূর্বে আমার স্টারডাম ক্ষুণ্ণ করতে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। এসব আমি আর মুখ বুজে সহ্য করব না।’

পবিত্র ওমরাহ করে এসে ‘কাগজের বউ’ সিনেমায় অভিনয় থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন সময়ের আলোচিত চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি।

কিছুটা বিরতি দিয়ে এবার অভিনয়ে ফিরলেন। 

সোমবার এফডিসিতে ‘বুবুজান’ ছবির শুটিংয়ে অংশ নিলেন তিনি। এ সময় সাম্প্রতিক সময়ে প্রতিমন্ত্রীর পদ হারানো ডা. মুরাদ হাসানের সঙ্গে ফাঁস হওয়া কল রেকর্ড নিয়েও কথা বলেন মাহি। 

‘অগ্নিৎ’ সিনেমাখ্যাত এ নায়িকা জানান,  এই রকম ফোনকল শুধু একদিন আসেনি, আরও অনেক এসেছে। 

মাহি বলেন, ‘একটা মাতাল মানুষ, তার সঙ্গে কথা বাড়ানো তো বোকামি ছাড়া কিছুই নয়। এই রকম ফোন তো একদিন আসেনি, আরও অনেক এসেছে। আমার কাছের মানুষদের সঙ্গে শেয়ার করতাম। তাদের একটা ভয় কাজ করত, চুপ থাকতে বলতেন। এভাবেই পাশ কাটিয়ে গিয়েছি। দেখেন আমি তখন ফেসবুকে লাইভে আসতে পরতাম। হইচই হতো। কিন্তু আমার ইমেজ, পরিবারের ইমেজ ও নিরাপত্তার বিষয়টিও তো দেখতে হয়। যে খারাপ সে তার শাস্তি পেয়েছে।’ 

ফোনে কথা চালিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে মাহি সাংবাদিকদের বলেন, ‘দেখুন! আগেও বলেছি এখনও বলছি- ওই সময়ে কিছুই করার ছিল না আমার। আপনারাই ভাবুন, এমন পরিস্থিতে ওই রকম পজিশনের একজন এভাবে কথা বললে তার বিপরীতে কিইবা করার থাকে!’

ইউরোপের নিরাপত্তা ও ইউক্রেনের সংঘাত নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে বহুল প্রত্যাশিত আলোচনা হতে যাচ্ছে আগামী ১০ জানুয়ারি জেনেভাতে। গত জুনের শীর্ষ সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের চালু করা কৌশলগত নিরাপত্তা সংলাপের উদ্যোগের অংশ হিসেবে অনুষ্ঠিত হবে ওই আলোচনা।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের একজন মুখপাত্র গত সোমবার গভীর রাতে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এএফপিকে বলেছিলেন, রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা আগামী ১০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল মঙ্গলবার রাশিয়ার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ ওই তারিখটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, এ আলোচনা সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে গত জুনে সেখানে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট প্রথম শীর্ষ বৈঠকে মিলিত হয়েছিলেন।

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সেনা সমাবেশ নিয়ে বেশ কয়েক সপ্তাহের উত্তেজনার প্রেক্ষাপটে এই আলোচনা হতে যাচ্ছে। আক্রমণের উদ্দেশ্যে রাশিয়া ইউক্রেনের আশপাশে কয়েক হাজার  সেনা মোতায়েন করেছে বলে অভিযোগ করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।

১০ জানুয়ারির আলোচনায় পক্ষগুলোর প্রতিনিধিত্ব কারা করবেন সে বিষয়ে তাত্ক্ষণিকভাবে কোনো কথা বলা হয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে পশ্চিমা দেশগুলো এবং তাদের সামরিক জোট ন্যাটো রাশিয়ার সীমান্তের দেশগুলোকে দলে টানার মাধ্যমে বিপজ্জনকভাবে কাছে চলে আসছে বলে ক্রমেই বেশি করে অভিযোগ করছে রাশিয়া। চলতি মাসের শুরুর দিকে মস্কো পশ্চিমের দেশগুলোর কাছে দাবি তুলে ধরে বলেছে, ন্যাটোর অবশ্যই উচিত নয় নতুন সদস্য হিসেবে ইউক্রেনকে অন্তর্ভুক্ত করা। রাশিয়া চায় না, তার সীমান্তের কাছে সাবেক এই সোভিয়েত প্রজাতন্ত্রে ন্যাটো ঘাঁটি স্থাপন করুক।

নাম প্রকাশ না করা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র সোমবার বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনার জন্য আগ্রহী। যখন আমরা কথা বলতে বসব, রাশিয়া তার উদ্বেগগুলো আলোচনার টেবিলে উত্থাপন করতে পারে। আমরা রাশিয়ার কার্যকলাপের ফিরিস্তি তুলে ধরার পাশাপাশি আমাদের উদ্বেগগুলোকে আলোচনার টেবিলে উত্থাপন করব।’

ওই মুখপাত্র আরো বলেন, দ্বিপক্ষীয় আলোচনার পরে মস্কো ও ন্যাটোর প্রতিনিধিরা ১২ জানুয়ারি আলোচনার জন্য মিলিত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এরপর ১৩ জানুয়ারি রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্রসহ অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যান্ড কো-অপারেশন ইন ইউরোপের (ওএসসিই) প্রতিনিধিরা আলোচনায় অংশ নেবেন।

হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কৌশলগত নিরাপত্তা  সংলাপ চালু করার মূল উদ্দেশ্য স্নায়ুযুদ্ধ-পরবর্তী পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তি পুনরুজ্জীবিত করা হলেও এখন এর মধ্যে ইউক্রেন নিয়ে অচলাবস্থাও অন্তর্ভুক্ত হবে।

ন্যাটো-রাশিয়া কাউন্সিলের বৈঠক এবং মস্কো ও অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যান্ড কো-অপারেশন ইন ইউরোপের (ওএসসিই) স্থায়ী কাউন্সিলের মধ্যে আলোচনাটি হবে ইউক্রেনকে কেন্দ্র করেই। স্নায়ুযুদ্ধের সময়কালে রাশিয়া ও পশ্চিমের মধ্যে একটি ফোরাম হিসেবে ওএসসিই প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

রাশিয়ার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ গতকাল বলেছেন, রাশিয়ার নিরাপত্তার দাবিকে গুরুত্ব দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা হবে বলে আশা করে মস্কো। তিনি রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা টিএএসএসকে বলেছেন, ‘১০ জানুয়ারি হবে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার প্রধান দিন। আমরা আশা করি, আমাদের আলোচনাটি খসড়া চুক্তিতে পরিণত হবে। আমরা এই প্রক্রিয়া ঝুলিয়ে রাখতে পারি না। ইস্যুটি অত্যন্ত জরুরি।’

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেছেন, আলোচনায় মস্কো তার স্বার্থরক্ষায় কঠোর অবস্থানে থাকবে। দেশটির প্রতিবেশী ইউক্রেন মস্কোর প্রভাব বলয় থেকে বেরিয়ে অবশেষে ন্যাটো জোটে যোগ দিতে চাইছে।

রাশিয়া এরই মধ্যে ক্রিমীয় উপদ্বীপের একটি অংশ ইউক্রেনের কাছ থেকে নিজেদের সঙ্গে যুক্ত করে নিয়েছে। একই সঙ্গে তারা ইউক্রেনের মস্কোপন্থী বিদ্রোহীদের উসকে দিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়া হাজার হাজার সেনা মোতায়েন করলেও পুতিন প্রতিবেশী দেশটিতে হামলার পরিকল্পনা অস্বীকার করে বলেছেন, তাঁদের সেনাদের এই বিচরণ পশ্চিমা সেনাবাহিনীর দখলদারির বিরুদ্ধে রাশিয়াকে রক্ষা করার জন্য।

যুক্তরাষ্ট্র এবং তার ইউরোপীয় অংশীদাররা ইউক্রেন আক্রমণ করলে রাশিয়ার ওপর কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র বলেছেন, রাশিয়ার সঙ্গে কোনো চুক্তি করার ক্ষেত্রে ইউক্রেনের স্বার্থকে উপেক্ষা করা হবে না।


যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত উপসর্গবিহীন রোগীদের জন্য সেল্ফ-আইসোলেশনের মেয়াদ ১০ দিন থেকে কমিয়ে ৫ দিন করা হয়েছে। সিবিসি নিউজ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

স্থানীয় সময় সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) বলেছে, আইসোলেশনের পর উপসর্গবিহীন আক্রান্তদের আরো পাঁচ দিন অন্যদের আশপাশে থাকার সময় মাস্ক পরে থাকতে হবে। আগে আইসোলেশনের মেয়াদ ছিল ১০ দিন।

তবে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে যাদের উপসর্গ নেই, তারা পাঁচ দিন আইসোলেশনে থেকে পরে মাস্ক ব্যবহার করলেই চলবে। তবে যারা করোনা টিকার বুস্টার ডোজ নিয়েছেন, তারা ভাইরাসের সংস্পর্শে এলেও কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না। অবশ্য তাদেরও ১০ দিন মাস্ক পরে থাকতে হবে।

সিডিসির পরিচালক রোসেল ওয়েলনস্কি বলেছেন, করোনার বিস্তার এবং টিকা ও বুস্টার ডোজের মাধ্যমে পাওয়া সুরক্ষা সম্পর্কে আমরা যা জেনেছি, তার সঙ্গে  আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিনের সংগতি সাধনের জন্যই এসব সুপারিশ করেছে সিডিসি।


পরমাণু অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ ও ইউক্রেন প্রশ্নে উত্তেজনা প্রশোমনে আগামী ১০ জানুয়ারি আলোচনা করবে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া। হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক মুখপাত্র একথা জানিয়েছেন। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে এএফপি।

জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের ওই মুখপাত্র বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার সাথে আলোচনার অপেক্ষায় রয়েছে।’

এরপর মস্কো ও ন্যাটোর প্রতিনিধিরা আগামী ১২ জানুয়ারি বৈঠক করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।

তিনি আরও জানান, রাশিয়া ও ওএসসিই আঞ্চলিক নিরাপত্তা পরিষদ আগামী ১৩ জানুয়ারি আলোচনা করার কথা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এ পরিষদের অন্তর্ভূক্ত দেশ।



গত ২৫ অক্টোবরে সুদানের সামরিক অভ্যুত্থানের পর শনিবার দেশটিতে এক সপ্তাহে দ্বিতীয়বারের মতো বড় ধরনের বিক্ষোভ হয়। বিক্ষোভকারীরা প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করে।

সুদানের সেনট্রাল কমিটির চিকিৎসকরা বলেছেন, শনিবারের বিক্ষোভে সহিংসতায় ১৭৮ জন আহত হয়েছে। আটজন তাজা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

আরেকটি বিবৃতিতে কমিটি বলেছে, নিরাপত্তা বাহিনী খার্তুম হাসপাতাল এবং পোর্ট সুদান হাসপাতালে ঢুকেছে।

সুদানে প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লাহ হামদককে গতমাসে প্রধানমন্ত্রী পদে পুনর্বহাল করার পরও সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভকারীরা বলছে, অবাধ একটি নির্বাচনে যাওয়ার সময়টিতে সেনাবাহিনী সরকারে যেন কোনও ভূমিকা পালন না করে।


কক্সবাজারে গণধর্ষণের ঘটনার রহস্য যেন একটু একটু করে খোলাসা হতে চলেছে। পুলিশ অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে ঘটনাটি তদন্ত করছে বলে জানিয়েছে। ধর্ষণের শিকার নারী ও তার স্বামী এই বিষয়ে শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় আদালতে ১৮ পৃষ্ঠার জবানবন্দি দিয়েছেন। এতে উঠে আসা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো- ওই নারী তার আট মাস বয়সী অসুস্থ শিশুর চিকিৎসায় অর্থ যোগাড় করতে কক্সবাজারে এসেছিলেন। স্বামীসহ তিন মাস ধরে এখানকার বিভিন্ন হোটেলে থাকেন তিনি।

জবানবন্দিতে ওই নারী জানান, তার ৮ মাস বয়সী শিশুর হার্টে ছিদ্র রয়েছে। তার চিকিৎসায় ১০ লাখ টাকা প্রয়োজন। টাকা যোগাড় করতে তিনি কক্সবাজার এসেছেন। বিগত তিন মাস ধরে শহরের অন্তত ৭টি হোটেলে অবস্থান করেছেন বলেও জানান ওই নারী।

তার ভাষ্যে মতে, সোমবার (২০ ডিসেম্বর) সকালে কলাতলী এলাকায় সি ল্যান্ড নামে একটি গেস্ট হাউজে অভিযুক্ত আশিকুল ইসলামের সঙ্গে তার পরিচয় হয়েছে। আশিক তার কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। এর আগে তাকে ১০ হাজার টাকা দিয়েছেন। কিন্তু আরো টাকা দিতে ব্যর্থ হলে ওই নারীকে বুধবার রাত ৮টার দিকে কলাতলী লাইট হাউজ এলাকার একটি কটেজের সামনে থেকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায় সন্ত্রাসী আশিক।

জবানবন্দিতে ওই নারী জানান, তাকে বুধবার রাত ৮টার দিকে সৈকত পোস্ট অফিসের পেছনে একটি ঝুপড়ি চায়ের দোকানের পেছনে নিয়ে যায়। সেখানে আশিকের দুই বন্ধু তাকে ধর্ষণ করে। এরপর আশিক তাকে আবার মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায় কলাতলী এলাকার জিয়া গেস্ট ইন নামে একটি হোটেলে। তাকে নিয়ে ওই হোটেলের একটি কক্ষে উঠেন আশিক। সেখানে তাকে ধর্ষণের সুযোগ পায়নি সন্ত্রাসী আশিক। তার আগেই একটি ফোন কলের কারণে আশিক কক্ষ থেকে চলে যায়।

ওই নারী জানান, তিনি নিজেই হোটেল কক্ষ থেকে বের হয়ে পর্যটন মোটেলের সামনের সড়কে আসেন। সেখানে স্বামীকে দেখতে পান র‌্যাবের কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে কথা বলতে। র‌্যাব তাকে নিয়ে হোটেল জিয়া গেস্ট ইনে আসে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার ওই নারী অভিযোগ করেছিলেন, বুধবার বিকেলে সৈকতের লাবনী পয়েন্টে তারা বেড়াতে যান। সেখানে অপরিচিত এক যুবকের সঙ্গে তার স্বামীর ধাক্কা লাগলে, কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে সন্ধ্যার পর পর্যটন গলফ মাঠের সামনে থেকে তার ৮ মাসের সন্তান ও স্বামীকে সিএনজি অটোরিকশায় করে কয়েকজন তুলে নিয়ে যায়।

এ সময় আরেকটি সিএনজি অটোরিকশায় ওই নারীকে তুলে নেয় তিন যুবক। পর্যটন গলফ মাঠের পেছনে একটি ঝুপড়ি চায়ের দোকানের পেছনে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে তিনজন।

এরপর তাকে নেয়া হয় কলাতলীতে জিয়া গেস্ট ইন নামে একটি হোটেলে। সেখানে ইয়াবা সেবনের পর আরেক দফা তাকে ধর্ষণ করেন ওই তিন যুবক। ঘটনা কাউকে জানালে সন্তান ও স্বামীকে হত্যা করা হবে জানিয়ে কক্ষ বাইরে থেকে বন্ধ করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে তারা। র‌্যাব এসে তাকে উদ্ধার করেন।

কক্সবাজারে ট্যুরিস্ট পুলিশের সুপার মো: জিল্লুর রহমান বলেন, প্রাথমিক অনুসন্ধান ও ভিকটিম এবং মামলার বাদীকে আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করে আমরা জানতে পেরেছি ওই নারী ও তার স্বামী গত তিন মাসে ধরে কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন হোটেল কক্ষ ভাড়া নিয়ে অবস্থান করছেন। এর মধ্যে লাইট হাউজ এলাকার আরমান কটেজ, একই এলাকার দারুল আল এহসান, সি ল্যান্ডসহ কয়েকটি কটেজে থাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, ওই নারী ও তার স্বামীর দেয়া তথ্যে অনেক গড়মিল রয়েছে। যা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পুলিশ অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে নারী ধর্ষণের এই মামলা তদন্ত করছে।

এদিকে আরমান কটেজের ম্যানেজার মো: হাসান বলেন, কিশোরগঞ্জ সদরের পরিচয় দিয়ে ওই নারী ও তার স্বামী দৈনিক এক হাজার টাকা ভাড়ায় আমাদের কটেজে অনেক দিন ছিলেন। বেশিরভাগ সময় বাচ্চা নিয়ে হোটেলে থাকতো ওই নারীর স্বামী। আর ওই নারী বাইরে যেতো। তবে কোথায় যেতো, কী করতো আমরা জানি না।

গত ২০ ডিসেম্বর ওই দম্পতি আরমান কটেজের বিপরীতে দারুল এহছান নামে একটি কটেজে উঠেন। পরের দিন তাদেরকে সেখান থেকে বের করে দেয় কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে হোটেল মালিক আলি আকবর বলেন, ২০ ডিসেম্বর রাত ১০টার দিকে হোটেলের সামনে আশিকের সাথে ওই নারীর স্বামীর কথা কাটাকাটি হয়। বিষয়টি আমার নজরে আসলে আমি ওই নারীর স্বামীর কাছে জানতে চাই কী সমস্যা। কিন্তু তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি। এই কারণে আমি তাদেরকে আমার হোটেল থেকে বের করে দেই। সেখানে থেকে তারা একটু দূরে অন্য একটি কটেজ সি ল্যান্ড হোটেলে উঠেন। সেখানেই ছিলেন ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

পুলিশ জানিয়েছে, রাতে ওই হোটেল থেকে তুলে নিয়ে যায় আশিক। এরপর সেখান থেকে তাকে সৈকত পোস্ট অফিসের পেছনে ছেনুয়ারা নামে এক নারীর ঝুপড়ি চায়ের দোকানে নিয়ে যায় সন্ত্রাসী আশিক।

চায়ের দোকানের মালিক ছেনুয়ারা বেগম বলেন, আশিক এক নারীকে সাথে নিয়ে বুধবার রাত ৮টার দিকে আমার এখানে আসেন। এরপর আশিক ওই নারীকে দিয়ে তার স্বামীকে ফোন করান। সেসময় ওই নারী তার স্বামীকে মুঠোফোনে বলেন ‘তুমি নাকি আশিক ভাইয়ের সাথে বেয়াদবি করেছো। তুমি এখানে আসো, আমি আছি। আশিক ভাই তোমাকে কিছু করবে না।’ ওই নারীর স্বামী সেখানে আসেনি। এরপর আশিক কিছুক্ষণ এখানে অবস্থান করেন। পরে ওই নারীকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে চলে যায়।

তিনি আরো বলেন, সেদিন আশিক আমার দোকানের একটু দূরে এক কিশোরকে ছুরির ভয় দেখিয়ে টাকা লুট করে।

এ বিষয়ে ভিকটিম নারী বলেন, আশিক সেখানে ধর্ষণ না করলেও তার দুই বন্ধু দোকানের পেছনে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেছে। পরে হোটেল মোটেল জোনের জিয়া গেস্ট ইনে নিয়ে আসে আশিক।

জিয়া গেস্ট ইন এর পরিচালক রায়হান বলেন, আশিক ও ওই নারী স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে স্বাভাবিক পর্যটকের মতো হোটেলে আসে। এখানে ওই নারী নিজেকে সাথী নাম পরিচয় দিয়ে কার্ডে স্বাক্ষর করে আশিকের সাথে রুমে গেছেন। তারা একটি কক্ষে ৪০ মিনিট অবস্থান করে। তারপর আশিক বেরিয়ে যায়। এরপর ওই নারীও এখান থেকে চলে যায়। এর অনেক পরে ওই নারী ও তার স্বামীকে নিয়ে আমার হোটেলে আসেন। এখানকার ম্যানেজার রিয়াজ উদ্দিনকে র‌্যাব আটক করে নিয়ে যায়।

৯৯৯-এ কল করেনি ভিকটিম
ভিকটিম ৯৯৯-এ সাহায্য চেয়ে কল করার কথাটি মিথ্যাচার বলছেন কক্সবাজার জেলা ট্যুরিস্ট পুলিশ। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: মহিউদ্দিন বলেন, এই দম্পতি বুধবারের ঘটনার পর ৯৯৯-এ কোনো কল করেনি। তবে দুই মাস আগে ৯৯৯-এ কল করে স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ করেছিলেন। ওই সময়ে থানায় গিয়ে তারা শহরের দুই শীর্ষ সন্ত্রাসী ফাহিম ও বাবুর নামে অভিযোগ দিয়েছিলেন। যার তদন্ত করেছিলেন একজন এসআই। তবে পরে ওই নারীর অসহযোগিতার কারণে তদন্ত কাজ বন্ধ করে দেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা।

এদিকে ঘটনার ৩ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে মূলহোতা আশিক ও তার সহযোগীরা। তবে তাদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।


রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মোকাবিলায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবহার করে বাংলাদেশে 'গুম' এর যে সংস্কৃতি চালু হয়েছে তা এখনই থামাতে বলেছে জাতিসংঘ। এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সরকারকে গুরুতর ওই অপরাধ নিয়ন্ত্রণে জরুরি পদক্ষেপ নিতে বলেছে গুম বিষয়ক জাতিসংঘ কমিটি। গত সপ্তাহে কমিটির সুপারিশসহ তাগিদপত্র ঢাকায় পৌঁছেছে। ঢাকা ও জেনেভার দায়িত্বশীল কূটনৈতিক সূত্র রাতে মানবজমিনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের গুম-বিষয়ক ওয়ার্কিং কমিটির অভিযোগ রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ও ভিন্ন মতাবলম্বীদের দমনে বাংলাদেশে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও নিরাপত্তা বাহিনীকে ব্যবহার রীতিমতো ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। এখানে ‘গুম’-কে অনেকটা হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে সরকার। গুমের অভিযোগের বিষয়ে জাতিসংঘ ওয়ার্কিং কমিটির কাছে ‘বিশ্বাসযোগ্য তথ্য’ রয়েছে জানিয়ে বলা হয়- এ নিয়ে আলোচনার জন্য জাতিসংঘ প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে আসতে দফায় দফায় চেষ্টা করেছে, কিন্তু ঢাকার তরফে সহযোগিতা দূরে থাক, সাড়া-ই মিলেনি।

বিষয়টি নিয়ে গত সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের গুম-বিষয়ক ওয়ার্কিং কমিটির ১২৫তম বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। সেই আলোচনার ভিত্তিতে হালনাগাদ হওয়া একটি রিপোর্ট ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
বাংলাদেশ সরকারের দায়িত্বশীল এক প্রতিনিধি জাতিসংঘের ওই রিপোর্ট পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে তিনি ওই রিপোর্ট নিয়ে বরাবরের মতো প্রশ্ন তুলেছেন।

মানবজমিনকে তিনি বলেন, মানবাধিকার পরিষদের আলোচনায়ই আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গুমের অভিযোগ খণ্ডন করেছেন। সেখানে মন্ত্রী খোলাসা করেই বলেন, বাংলাদেশে ঘন ঘন গুমের যে অভিযোগ করা হয় তার সঙ্গে সরকার একমত নয়। নানা কারণে নিখোঁজ ব্যক্তিদের ‘গুম’ হিসেবে চালিয়ে দেয়ার একটি প্রবণতা বাংলাদেশে লক্ষ্যণীয়। মন্ত্রী পাল্টা অভিযোগ করেন এমন দাবি সরকারের অর্জন ও ভাব-মর্যাদাকে ক্ষুণ্ন করার হীনউদ্দেশ্যে করা হয়ে থাকে।

বান্দরবা‌নের রোয়াংছ‌ড়ির তারাছা ইউ‌নিয়‌নের বেতছড়ার বাধরা ঝর্ণার পা‌শে সাঙ্গু নদী‌তে নি‌খোঁজ আদ‌নিনের (১৬) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শ‌নিবার (২৫ ডি‌সেম্বর) সকাল সা‌ড়ে ৯টায় লাশ উদ্ধার করেন ফায়ার সা‌র্ভিসের কর্মীরা। তবে একই সঙ্গে নিখোঁজ তার ভাই মো. আহনাফ আকিবের (২২) এখনও খোঁজ মেলেনি। তা‌কে উদ্ধা‌রে চেষ্টা চলছে।

আহনাফ আকিব ও আদ‌নিন নারায়ণগ‌ঞ্জের ফতুল্লার জ‌হিরুল ইসলা‌মের ছে‌লে। সন্তানদের নিখোঁজের খবরে ফতুল্লা থেকে ছুটে যান মা সাইদা শিউলী ও মামা শামীম।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বান্দরবা‌ন থেকে ১০ পর্যটক নৌকা‌তে ক‌রে সাঙ্গু নদীপথে বেতছড়ায় বেড়া‌তে আসেন। এ সময় বেতছড়ার বাধরা ঝর্ণার পাশে নদী‌তে গোসল করতে নামলে আট জন স্রোতে ভেসে যান। স্থানীয়রা ছয় জন‌কে জী‌বিত উদ্ধার করে। হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়।


ঘটনার পরপরই পু‌লিশ, সেনাবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নিখোঁজ ভাই-বোনকে উদ্ধারে কাজ শুরু ক‌রে। দুর্গম এলাকা ও পানি অত্যধিক ঠান্ডা হওয়ায় রাত ৮টার পর উদ্ধার কাজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়। শ‌নিবার সকা‌লে আবারও উদ্ধার কাজে নেমে আদ‌নি‌নের লাশ উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

বান্দরবান রোয়াংছ‌ড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও‌সি) মান্নান জানান, নি‌খোঁজ দুই ভাই-বোনের ম‌ধ্যে সকা‌লে একজনের লাশ পাওয়া গে‌ছে। আ‌রেকজন‌কে উদ্ধা‌রে এখ‌নেও চেষ্টা চল‌ছে।


চিরশান্ত সুগন্ধা। কালেভদ্রেও এখানে ঢেউ নেই। এর আগে বিষখালী পরে কীর্তনখোলা। দূর থেকে সুগন্ধাকে দেখে মনে হবে মায়াময় দীর্ঘ জলের প্রলেপ। আইলা-সিডরেও একে কেউ অশান্ত হতে দেখেনি। গতকাল সর্বনাশা এক বিস্ফোরণ কলঙ্ক লেপে দিলো সেই সুগন্ধায়। সেখানকার বাতাসে এখন কেবলই লাশের পোড়া গন্ধ আর স্বজনদের আহাজারি। রাতের অন্ধকারে সেই শান্ত সুগন্ধায় নেমে আসে বিভীষিকা।

দাউ দাউ আগুনে বাঁচার আকুতি নিয়ে শত শত মানুষ লাফিয়ে পড়ে সুগন্ধা নদীর দিয়াকুল নামক স্থানে। অনেকেই প্রাণ বাঁচাতে ঝাঁপ দিলেও হারিয়ে যায় চিরতরে। কেউ হারিয়েছেন সন্তান, কেউ পিতা-মাতা।

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে বরগুনাগামী অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় হতাহতদের  খোঁজে নদীর পাড় ও হাসপাতালে ভিড় করছেন স্বজনেরা। এ সময় প্রিয়জনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠছে সেখানকার পরিবেশ। গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে ঝালকাঠি সদরের দিয়াকুল গ্রামের কাছে সুগন্ধা নদীতে লঞ্চটিতে আগুন লেগে যায়।

লঞ্চটি প্রায় ৮০০ যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে বরগুনার উদ্দেশে রওনা হওয়ার পথে ঝালকাঠিতে ওই দুর্ঘটনার শিকার হয়। যাত্রীদের অভিযোগ, শুক্র ও শনিবার দু’দিন বন্ধ থাকায় ধারণক্ষমতার চেয়ে  বেশি যাত্রী ছিল লঞ্চে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত লঞ্চটি থেকে ৩৬ জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের যৌথ বাহিনী। এ ঘটনায় দগ্ধ প্রায় ৭৫ জনকে বরিশালের শের-ই-বাংলা  মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ১৫ জনকে ভর্তি করা হয়েছে।

ভয়াবহ এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দীর্ঘ হচ্ছে লাশের সারি। দুর্ঘটনার পর থেকে পৌর মিনিপার্কে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছে পোড়া মরদেহ। কান্নায় ভারি হচ্ছে চারপাশের পরিবেশ। কেউ বা শোকে পাথর। অনেকই আপনজনের খোঁজে ছুটছেন লাশের স্তুপ থেকে হাসপাতাল পর্যন্ত। কেউ সুগন্ধা নদীর তীরে খুঁজে বেড়াচ্ছেন স্বজনদের। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে এমনটাই দাবি স্বজনদের। এ দৃশ্য দেখে ঘটনাস্থলে ভীড় করা সাধারণ মানুষের চোখেও ঝরছে পানি।

গতকাল দুপুর ৩টায় পার্কে গিয়ে দেখা যায়, পুড়ে যাওয়া মরদেহগুলো নদীর পার্শ্বের অংশে সারিবদ্ধভাবে রাখা। পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘিরে রেখেছে লাশ। রেড ক্রিসেন্টসহ বন্ধুসভার স্বেচ্ছাসেবী সদস্যারা স্বজন হারানো ব্যক্তিদের বিভিন্নভাবে তথ্য দিচ্ছেন ও নিচ্ছেন। মৃতদের অধিকাংশ পুড়ে কয়লা হয়ে যাওয়ায় অনেকেরই পরিচয় শনাক্ত হয়নি। স্বজনরা পোড়া দেহ দেখতে চাইলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যাগ খুলে দেখাচ্ছেন। এ সময় পোড়া গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র। অনেকেই তা সহ্য করেই খুঁজে বেড়াচ্ছেন প্রিয় মানুষটিকে। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন দায়িত্বে থাকা বাহিনীর সদস্যরা।
এদিকে, সাজিয়ে রাখা মরদেহের মধ্যে একটি ব্যাগে দুটি লাশ রাখা হয়েছে। সাজিয়ে রাখা ২৬ নম্বর মরদেহটি বয়স্ক কোনো নারী কিংবা পুরুষের। তার বুকের উপর একটি শিশুর মরদেহ দেখা গেছে। যার নম্বর ৩৬। সেখানে দেখা যায়, ২৬ নম্বর ব্যক্তি ৩৬ নম্বরধারী শিশুটিকে জড়িয়ে ধরেছেন। দুজনের শরীর পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে। তাদেরকে শনাক্ত করার মতো কোনো উৎস খুঁজে পাচ্ছেনা দায়িত্বে থাকা লোকজন।

নিখোঁজদের ছবি নিয়ে বিলাপ করছেন কারও মা,বাবা, ভাই-বোন। তাদের একজন রুহুল আমিন। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, গতকাল ঢাকা থেকে বরগুনার পাথরঘাটার উদ্দেশ্যে ছেলে মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে লঞ্চে উঠি। মধ্যরাতে চিৎকারে ঘুম থেকে উঠে দেখি লঞ্চে আগুন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমার স্ত্রী ও মেয়েকে দেখি লঞ্চের মধ্যে ছোটাছুটি করছে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে তারা ধোয়ায় হারিয়ে যায়। তাদেরকে আর দেখতে পাইনি। কোনো কিছু ভেবে না পেয়ে ছেলেকে নিয়ে পানিতে লাফ দেই। কিন্তু মেয়ে ও স্ত্রীকে আর পাইনি। এখন তাদের খুঁজে বেড়াচ্ছি। কোথাও খুঁজে পাচ্ছি না। খোঁজ নিয়েছি কোনো হাসপাতালে নাই। আল্লাহ জানে তারা কি বেঁচে আছে নাকি আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আল্লাহ আর সহ্য করতে পারছি না। জানিনা ভাগ্যে কি আছে।

এদিকে, গতকাল সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৬ জনের মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে। তবে কারও মরদেহ হস্তান্তর করা হয়নি।

এদিকে সন্তানকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন বরগুনার বামনা উপজেলার বুকাবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা গীতা রানী। বিভিন্ন জায়গায় ছুটে বেড়ালেও সন্তানকে খুঁজে না পেয়ে আহাজারি করছিলেন গীতা। কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলেন, আমার দুই সন্তান স্বপ্নীল চন্দ্র হালদার ও প্রত্যয় (৬) কে নিয়ে বরগুনায় গ্রামের বাড়ি যাচ্ছিলাম। আগুন লাগার কিছু আগে স্বপ্নীল লঞ্চের টয়লেটে যায়। এরপরই আগুন লাগে। যাত্রীরা আত্মরক্ষায় বিভিন্নদিকে ছুটতে থাকে। আগুনের তাপ সহ্য করতে না পেরে প্রত্যয়কে নিয়ে নিচে নামার চেষ্টা করি। এক পর্যায়ে মানুষের ধাক্কায় ছেলে আমার হাত থেকে ছুটে যায়। আর তাকে পাইনি। ঘটনাস্থল থেকে শুরু করে বিভিন্ন হাসপাতালে খুঁজেও তাকে পাইনি।

সূত্রে জানা যায়, এর আগে বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ৩টায় ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলাধীন সরই এলাকা সংলগ্ন সুগন্ধা নদীতে বরগুনাগামী এমভি অভিযান-১০ লঞ্চের ইঞ্জিন রুম থেকে আগুন লাগে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। অগ্মিদগ্ধ হয়ে শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭০ জন। এরমধ্যে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে ১৬ জনকে।
শেবাচিম হাসপাতালের সব চিকিৎসক, নার্স ও স্টাফদের ছুটি বাতিল

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল থেকে জানান, লঞ্চ দুর্ঘটনার কারণে ভর্তি হওয়া অগ্নিদগ্ধ রোগীদের চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও স্টাফের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করেছে কর্তৃপক্ষ। তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম। গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সুগন্ধা নদীতে ঢাকা থেকে বরগুনাগামী এমভি অভিযান-১০ নামক লঞ্চের ইঞ্জিন থেকে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে দগ্ধ হয়েছেন বহু মানুষ। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪০ জন। অগ্নিদ্বগ্ধ প্রায় শতাধিক। ভোর ৫টা থে?কে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লঞ্চে আগুনে দগ্ধ রোগীরা আসতে শুরু করে। কিন্তু শেবাচিম হাসপাতালে বার্ন ইউনিট থাকলেও কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ছিল না। সাধারণ চিকিৎসক ও নার্স দিয়েই চলছে চিকিৎসা। হাসপাতালের পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম বলেন, ৭০ জন দগ্ধ রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া আশঙ্কাজনক ১৬ দগ্ধ রোগীকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। চিকিৎসার সুবিধার্থে সব চিকিৎসক ও নার্সের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এদিকে, সন্ধ্যায় হাসপাতালে অগ্নিদ্বগ্ধ রোগীদের দেখতে ঢাকা থেকে ছুটে আসেন সাবেক চিফ হুইপ আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ, স্বাস্থ্যসচিব মো. লোকমান হোসেন। তারা রোগীদের সুচিকিৎসার সব ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

দুই বছর পর তালা খুললো শেবাচিম বার্ন ইউনিটের: ওদিকে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ শতাধিক রোগী বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি ইউনিটে ভর্তি হয়েছেন। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর প্রায় বাধ্য হয়েই বার্ন ইউনিটের তালা খোলা হলো। দুই বছর আগে এ বার্ন ইউনিটটি উদ্বোধন করা হলেও কোনো চিকিৎসক না থাকায় অব্যবহৃতই ছিল এটি। গতকাল শুক্রবার সকালে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর এ ইউনিটে ভর্তি হওয়া বিপুলসংখ্যক অগ্নিদগ্ধ রোগী নিয়ে বিপাকে পড়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে শেষ পর্যন্ত ঢাকা থেকে রোগীর চিকিৎসায় আনা হলো চার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। গতকাল বিকালে ফ্লাইটযোগে তারা বরিশাল আসেন। দেশের ১৪টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের সঙ্গে পোড়া রোগীদের চিকিৎসার ব্যাপারে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করা হচ্ছে। সকালে ঘটনা শোনার পর ঢাকা থেকে সড়কপথে বার্ন ইউনিটের চারজন চিকিৎসককে বরিশাল পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়। সড়কপথে ফেরি পারাপারসহ বিভিন্ন সমস্যার কারণে তাদের ফ্লাইটযোগে বরিশাল পাঠানো হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে মালদ্বীপে সফররত স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকও তার সঙ্গে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে পোড়া রোগীদের চিকিৎসায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের ব্যাপারে আলোচনা ও নির্দেশনা প্রদান করেন বলে তিনি জানান।

বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিট দুই বছর আগে খোলা হলেও বর্তমানে কেন সেটি বন্ধ রয়েছে- এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ডা. সামন্ত লাল সেন মিডিয়াকে জানান, ইউনিটটি চালুর সময় একজন চিকিৎসক ছিলেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক পরে আত্মহত্যা করলে নতুন করে আর কাউকে সেখানে নিয়োগ দেয়া হয়নি। বার্ন চিকিৎসককে নিয়োগ দেয়ার ব্যাপারে একাধিকবার প্রচেষ্টা নিলেও চিকিৎসক পদায়নে সফল হওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টায় ঝালকাঠী সংলগ্ন সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান-১০ এ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৪০ জন নিহত হন। শতাধিক যাত্রী অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদের বেশিরভাগই বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সন্তানদের খুঁজে না পেয়ে পাগলপ্রায় দুই মা: ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ঢাকা থেকে বরগুনাগামী অভিযান-১০ লঞ্চে মর্মান্তিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিখোঁজ দুই সন্তানকে খুঁজে না পেয়ে পাগলপ্রায় দুই মা।

নিখোঁজ ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে ঢাকা উত্তরা হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী স্বপ্নিল চন্দ্র হাওলাদার (১৬)।  সে তার মায়ের সঙ্গে গ্রামের বাড়ি বরগুনার বামনায়  বেড়াতে যাচ্ছিল। নিখোঁজ অপর শিশুসন্তান হচ্ছে- আড়াই বছরের তাবাস্‌সুম। তার বাবা বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার ছোট পাথরঘাটা গ্রামের একটি মসজিদের ইমাম মুহাম্মদ নাছরুল্লাহ্‌ (২৭)।

ওই দুই সন্তানের মা-বাবা তাঁদের সন্তানদের খোঁজে কখনো সুগন্ধার পাড়ে, আবার কখনো সদর হাসপাতালে ছুটছেন। তাদের কান্নায় হাসপাতাল ও সুগন্ধার পাড়ের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠেছে। প্রশাসন বলছে, নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধারে সর্বাত্মক  চেষ্টা চলছে।

মসজিদের ইমাম মুহাম্মদ নাছরুল্লাহ বলেন, ‘লঞ্চের মধ্যে ধোঁয়ায় টিকতে না পেরে আমি স্ত্রী-সন্তান নিয়ে তিনতলার ছাদে উঠে যাই।  সেখানে কুয়াশার মধ্যে নদীর কিছু দেখা যাচ্ছিল না। এ অবস্থায়ই আমরা মেয়েসহ নদীতে ঝাঁপ দিই। পরে তীরে ওঠার আগেই মেয়েকে হারিয়ে  ফেলি।’ একমাত্র মেয়েকে হারিয়ে স্ত্রী সোনিয়াও বারবার কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে আরও বলেন, ‘আমার মেয়েকে যেন প্রশাসন খুঁজে বের করে দেয়। আমার সোনার মানিককে আপনারা আইনা দেন।’
শিক্ষার্থী স্বপ্নিল চন্দ্র হাওলাদারের মা স্বপ্না হাওলাদার বলেন, ‘লঞ্চে আগুন লাগার আগমুহূর্তে আমার ছেলে স্বপ্নিল  শৌচাগারে যায়। পরে আগুন ছড়িয়ে পড়লে আমি আমার  ছোট ছেলেকে নিয়ে কেবিন  থেকে লঞ্চের সামনে যাই। পরে স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করলেও আমার ছেলেকে খুঁজে পাইনি।’
ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ঢাকা  থেকে বরগুনাগামী অভিযান-১০ লঞ্চে গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে এখন পর্যন্ত ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া বরিশালের শের-ই-বাংলা  মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে শতাধিক যাত্রী দগ্ধ অবস্থায় চিকিৎসাধীন। বৃদ্ধ, শিশুসহ অনেকে নিখোঁজ। লঞ্চে আট শতাধিক যাত্রী ছিল।

Holy Foods ads

Holy Foods ads

যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget