জানুয়ারী 2022

বলিউডের দুই জনপ্রিয় নায়িকা কারিনা কাপুর ও আমিশা প্যাটেল। দুজনেরই সফল ছবি আছে বলিউডে। তবে তাদের সম্পর্কের রসায়ন খুব ভালো বলা যায় না।

এক সময়ে আমিশা প্যাটেলকে ‘বাজে অভিনেত্রী’ বলে মন্তব্য করেছিলেন কারিনা কাপুর। যদিও দুই দশক আগের সেই কথা নতুন করে তুলতে চান না আমিশা। এক্ষেত্রে আমিশা বুদ্ধিদীপ্তের পরিচয় দিয়েছেন। সমালোচনার পরিবর্তে উল্টো প্রশংসা করেছেন কারিনার।

আনন্দবাজার ডিজিটাল জানায়, রণধীর কাপুর এবং ববিতা কাপুরের মেয়ে কারিনা কাপুর। আবার ৯০ দশকের প্রথম সারির নায়িকা করিশমা কপুরের বোন। তাই প্রথম থেকেই করিনা কাপুরকে ঘিরে প্রত্যাশা ছিল আকাশছোঁয়া। বছরের সবচেয়ে সফল ছবি দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু শেষমেশ যে ছবিতে হাতেখড়ি হয়, তা বক্স অফিসে ডুবে যায়! বলিউডে নবাগতা তারকা-সন্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে উঠতে থাকে প্রশ্ন।

অনেকে বলেন, কারিনা নিজেই কুড়াল মারেন নিজের পায়ে। অজান্তেই নাকি বলিউডে জায়গা করে দেন অন্য এক নায়িকাকে।

ঠিক কী ঘটেছিল আজ থেকে দুই দশক আগে?

জানা গেছে, রাকেশ রোশন পরিচালিত ‘কাহো না পেয়ার হ্যায়’ ছবিতে অভিনয় করছিলেন কারিনা। বিপরীতে পরিচালকের পুত্র হৃতিক রোশন।

নতুন নায়ক-নায়িকাকে নিয়ে কাজ এগোচ্ছিল দিব্যি। কিন্তু নির্মাতাদের সঙ্গে মতপার্থক্যের কারণে আচমকাই ছবি থেকে সরে আসেন কারিনা। মাঝপথে শুটিং বন্ধ করতে নারাজ রাকেশ খুঁজে নেন নতুন মুখ।

এভাবেই কারিনার ছেড়ে দেওয়া ছবি আমিশা প্যাটেলের কাছে বলিউডের দরজা খুলে দেয়। ২০০০ সালের জানুয়ারি মাসে মুক্তি পেয়েছিল ‘কাহো না পেয়ার হ্যায়’। বক্স অফিসে রেকর্ড ব্যবসা করে দুই নবাগতকে নিয়ে তৈরি এই প্রেমের ছবি। ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছিলেন হৃতিক এবং আমিশাও।

অন্যদিকে, সেই বছরের জুন মাসে মুক্তি পায় কারিনার প্রথম ছবি ‘রিফিউজি’। বিপরীতে ছিলেন অভিষেক বচ্চন। দুই তারকা-সন্তানের অভিনয় প্রশংসিত হয়েছিল ঠিকই কিন্তু ব্যবসার নিরিখে ‘কাহো না পেয়ার হ্যায়’র ধারেও ঘেঁষতে পারেনি এই ছবি।

শোনা যায়, ‘কাহো না পেয়ার হ্যায়’ সাফল্যের পর থেকেই তিক্ততা আসে দুই নায়িকার সম্পর্কে। এমনকি আমিশার অভিনয় দক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিলেন কারিনা। সাত-পাঁচ না ভেবেই আমিশার গায়ে সেঁটে দিয়েছিলেন ‘বাজে অভিনেত্রী’র তকমা।

আমিশা যা বললেন

আমিশা যদিও আগাগোড়াই নিশ্চুপ ছিলেন। তবে সম্প্রতি জানিয়েছেন, কারিনার প্রতি কোনো ক্ষোভ নেই তার। এক সাক্ষাৎকারে সেই কথাই বলেন ‘গদর’ অভিনেত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমার কোনো শত্রু নেই। কারিনাকে কিছু গান এবং ছবিতে খুব ভালো লেগেছে। অসাধারণ অভিনয় করেন। এমনকি আমি আমার বন্ধুদের কাছেও ওর প্রশংসা করি। বলি, কী দারুণ কাজ করে ও!’

দুই দশক আগের তিক্ততা মনে রাখতে চান না অমিশা। বলেন, ‘আমি কারিনাকে নিয়ে শুধু ভালো কথাই বলবো। ব্যক্তিগতভাবে ওকে আমি চিনি না। তাই ওকে নিয়ে খারাপ কথা বলবো না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ওর কাজ দেখেছি। সেটা আমার ভালো লেগেছে। ও আমাকে নিয়ে মন্তব্য করেছে? আমাকে নিয়ে ওর মতামত থাকতেই পারে।’


মুক্তির পরই ঝড় তুলেছে ভারতের দক্ষিণী সিনেমা ‘পুষ্পা : দ্য রাইজ’। এই মুহূর্তে ইন্ডাস্ট্রির আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পুষ্পা। এমন হওয়াটাই স্বাভাবিক। কেননা, বড় বাজেটের বলিউড-হলিউড সিনেমাকেও টপকে গেছে সিনেমাটি।

সুকুমার পরিচালিত এই সিনেমার নাম ভূমিকায় আছেন ‘আইকন স্টার’ খ্যাত তেলেগু সুপারস্টার আল্লু অর্জুন। তার সঙ্গে প্রথমবারের মতো জুটি বেঁধেছেন রাশমিকা মান্দানা। এ ছাড়াও আছেন মালায়লাম তারকা ফাহাদ ফাসিল। সিনেমার আইটেম গানে আবেদনময়ী রূপে নেচেছেন সামান্থা রুথ প্রভু।

জানা গেলো, ব্লকবাস্টার এই ‘পুষ্পা’ সিনেমার অফার ফিরিয়ে দিয়েছেন টলি অভিনেতা যিশু সেনগুপ্ত। এই সিনেমায় মালায়ালাম সুপারস্টার ফাহাদ ফাসিলের চরিত্রটির জন্য প্রথমে যিশু সেনগুপ্তকে বেছে নিয়েছিলেন নির্মাতা সুকুমার। কিন্তু করোনার পরিস্থিতির কারণে ‘পুষ্পা’-তে অভিনয় করতে পারেননি যিশু। অবশ্য এতে খুব একটা আক্ষেপ নেই অভিনেতার। কেননা, তিনি চিরঞ্জিবীর সঙ্গে ‘আচার্য’ সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছেন।

বক্স অফিসে ঝড় তোলা এই সিনেমায় অভিনয়ের জন্য শুরুতে অনেক তারকাকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মুম্বাই এবং দক্ষিণী সেসব তারকারা ‘পুষ্পা’র প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন।

পুষ্পায় আল্লু অর্জুনের জায়গায় প্রথমে মহেশ বাবুকে চেয়েছিলেন পরিচালক সুকুমার। সিনেমা নিয়ে তার সঙ্গে খানিকটা কথা হলেও শেষ পর্যন্ত সরে যান অভিনেতা। কেননা, ধূসর চরিত্রে অভিনয়ে রাজি ছিলেন না তিনি।

এ ছাড়া সিনেমায় চোরাকারবারির প্রেমিকা ‘শ্রীবল্লী’র চরিত্রে রাশমিকা মান্দানাকে চাননি নির্মাতা। নায়িকার চরিত্রে তার প্রথম পছন্দ ছিলেন সামান্থা রুথ প্রভু। কিন্তু বিভিন্ন কারণে সামান্থা ‘শ্রীবল্লী’ হয়ে উঠতে পারেননি। তবে সিনেমার একটি আইটেম গানে তাক লাগিয়ে দেন তিনি।

এদিকে সেই আইটেম গানটির জন্য প্রথমে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল বলিউড অভিনেত্রী দিশা পাটানিকে। তিনি প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ায় নির্মাতারা দ্বারস্থ হয়েছিলেন বলিউডের ‘আইটেম গার্ল’ নোরা ফাতেহির কাছে। কিন্তু নোরা তিন মিনিটের একটি গানের জন্য আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিক চাওয়ায় তাকে নেওয়া সম্ভব হয়নি। এরপর আইটেম গানটিতে সামান্থাকে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন নির্মাতা। সেই গানে পুরো বাজিমাত করে দেন এই তারকা।

প্রসঙ্গত, মূল্যবান লাল চন্দন কাঠের অবৈধ বাণিজ্যকে ঘিরে আবর্তিত হয়েছে ‘পুষ্পা’ সিনেমার গল্প। তামিল, তেলুগু, মালয়ালম, কন্নড় ও হিন্দি ভাষায় মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি। মুক্তির তৃতীয় দিনেই বিশ্বজুড়ে ১০০ কোটি টাকার ব্যবসা করে নতুন রেকর্ড গড়েছে ‘পুষ্পা : দ্য রাইজ’। দুই পর্বে মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। এবার অপেক্ষা দ্বিতীয় পর্বের।


করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের মধ্যেও প্রায় ৪০০ কোটি রুপি ব্যবসা করেছে আল্লু অজুর্নের ‘পুষ্পা দ্য রাইজ’। বক্স অফিসে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে তামিল সিনেমাটি।

দক্ষিণী সিনেমা হলের এ চলচ্চিত্র বিদেশের দর্শকদেরও হৃদয় কাঁপিয়ে দিয়েছে। ছবির প্রধান অভিনেতা আল্লু অজুর্ন ও নায়িকা রাশমিকার সংলাপ, গান সিনেমাপ্রেমীদের মুখে মুখে এখন। নাচের স্টেপ নকল করে সোশ্যাল মিডিয়া আপলোড করছেন অনেকেই।  

এদিকে পুষ্পার শুটিং ও এর প্রমোশনে ১৬ দিন বাড়ি ফেরেননি আল্লু। আর বাড়ি ফিরতেই তাকে চমকে দিয়েছে মেয়ে আরহা।

এতদিন বাবাকে কাছে না পেয়ে মন বেজার ছিল আরহার। তাই বাবা ফিরতেই আল্লু অর্জুনকে ভালোবাসায় স্বাগত জানায় আরহা।

মেয়ের ভালোবাসায় আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন এ অভিনেতা। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করলেন আদরের মেয়ের সেই আবেগমাখা অভিনন্দন।

দুবাইতে বাড়ি ফিরতেই আল্লু দেখেন, মেয়ে আরহা ফুলের পাপড়ি সাজিয়ে সে লিখেছে— ‘ওয়েলকাম নানা’।  



ইনস্টাগ্রামে সেই ছবি আপলোড করে আল্লু ক্যাপশনে লিখেছেন— ‘১৬ দিন বাইরে থাকার পর যখন ফিরে এলাম, তখন আমাকে এই বিশেষভাবে স্বাগত জানানো হয়েছিল।’


দীপিকা পাড়ুকোন ও রণবীর সিং বলিউডের অন্যতম পাওয়ার কাপল। রণবীর যতটা খোলামেলা দীপিকা একেবারেই তাঁর বিপরীত। কিন্তু এবার নিজের বেডরুম সিক্রেট ফাঁস করলেন দীপিকা নিজেই।

রণবীর সিং ও দীপিকা পাড়ুকোন বলিউডের ফ্যাব কাপলদের অন্যতম। দীপবীর-এর (DeepVeer) পিডএ মোমেন্ট থেকে শুরু করে ক্যমেরায় তাঁদরে খুনসুটি সম্পর্কের সমীকরণ দেখতে হা-পিত্যেশ করে বসে থাকেন তাঁদের ভক্তকুল। রণবীর যতটাই ক্যামেরার সামনে খোলামেলা। দীপিকা একেবারেই তাঁর বিপরীত। বলিউডের মস্তানি আসলে ভীষণ রকম প্রাইভেট পার্সন।

২০১৯ সালে দীপিকা একটি সাক্ষাৎকারে তাঁর ও রণবীরের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে এমন কিছু তথ্য বলেন যা শুনে হেসে কুটোপাটি হল ভর্তি দর্শক। আসলে দীপিকা তাঁর ওই সাক্ষাৎকারে নিজেদের বেডরুম সিক্রেটই ফাঁস করেন সকলের সামনে। ২০১৯ সালে Nykaa Femina Beauty Awards-এ দীপিকাকে জিজ্ঞেস করা হয় রণবীর সমন্ধে অজানা এমন কয়েকটা অভ্যেস জানাতে।

সেই সময় দীপিকা রণবীর সম্পর্কে এমন কিছু তথ্য সকলের সামনে রাখেন যা শুনে হাসি চাপতে পারলেন না দর্শকরা। দীপিকা বলেন, “রণবীর স্নান করতে অনেকটা সময় নেয়, ঠিক ততটাই সময় নেয় রেডি হতে এমনকী বাথরুমে অনেকটা সময় ব্যায় করে। তেমনই বিছানায়ও বেশ দেরি করে রণবীর।”

 

ব্যাস যেই না দীপিকা এই কথা বলেছেন ওমনি অ্যাওয়ার্ড শো উপস্থিত দর্শকরা ইশারা করতে শুরু করে দেন। তক্ষুণি দীপিকা নিজেকে শুধরে নিয়ে ফের বলেন, “আমি বললাম রণবীর বিছানায় শুতে যেতে দেরি করে।”


সুপারস্টার হৃতিক রোশন জীবনের ৪৮তম বছর পার করছেন। আশির দশকে শিশুশিল্পী হিসেবে কয়েকটি সিনেমায় কাজ করেছিলেন তিনি। তবে নায়ক হিসেবে হৃতিকের অভিষেক হয় ২০০০ সালে ‘কাহো না পেয়ার হ্যায়’সিনেমার মাধ্যমে। 

ফ্যাশন ডিজাইনার সুজান খানের সঙ্গে দাম্পত্য জীবন শুরু করেন হৃতিক। সংসার আলো করে আসে দুই সন্তান। কিন্তু দীর্ঘ ১৪ বছর পর বিবাহবিচ্ছেদ করেন হৃতিক-সুজান। ২০১৪ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়।

বিচ্ছেদের পর কারো সঙ্গে হৃতিকের সম্পর্কে জড়ানোর কথা শোনা যায়নি। অবশেষে এক তরুণী তার মন জিতেই নিলেন। সেই তরুণীর নাম সাবা আজাদ; যিনি হৃতিকের চেয়ে ১৬ বছরের ছোট।

পড়েন তারা। মুহূর্তেই ছড়িয়ে যায় ছবিগুলো। মাস্ক পরে থাকায় প্রথমে তরুণীকে চিনতে পারেননি কেউ। পরক্ষণেই বেরিয়ে আসে আসল পরিচয়। 

সাবাসম্প্রতি এক রাতে সাবা আজাদের সঙ্গে রেস্তোরাঁয় ডিনার ডেটে গিয়েছিলেন হৃতিক। সেখান থেকে হাত ধরে বের হওয়ার সময়ই পাপারাজ্জিদের ক্যামেরায় ধরা  আজাদ বলিউডের তরুণ অভিনেত্রী। ইতোমধ্যে কয়েকটি ওয়েব সিরিজে কাজ করেছেন। কিছুদিন যাবত তার সঙ্গেই হৃতিক মেলামেশা করছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে।


২০১৫ সাল থেকে শুরু হওয়া ইয়েমেন যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ১০ হাজারের বেশি শিশু নিহত হয়েছে। সরাসরি যুদ্ধের কারণে প্রায় একই সংখ্যক প্রাপ্তবয়স্ক মানুষও মারা গেছে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রকাশিত একটি রিপোর্টে এ তথ্য উঠে এসেছে। খবর প্রকাশ করেছে আলজাজিরা ও বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীদের নিয়োগ করা প্রায় ১৫০০ শিশু ২০২০ সালের লড়াইয়ে মারা গেছে। পরের বছর নিহত হয় আরও কয়েকশ। শিশু-কিশোরদের মাঝে নিজেদের মতাদর্শ ছড়িয়ে দিতে এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ইয়েমেন সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধে উৎসাহিত করতে শিশুদের সৈনিক বানাচ্ছে হুথি বিদ্রোহীরা। সেই লক্ষ্যে তারা বেশ কয়েকটি ক্যাম্প এবং একটি মসজিদকে ব্যবহার করছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।

জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞদের চার সদস্যের প্যানেল জানিয়েছে, শিশুদের স্লোগান দেওয়া শেখাচ্ছে হুথি বিদ্রোহীরা। যার মধ্যে ‘আমেরিকার মৃত্যু, ইসরায়েলের মৃত্যু, ইহুদিদের প্রতি অভিশাপ এবং ইসলামের বিজয়’ অন্যতম। ক্যাম্পে ৭ বছর বয়সী শিশুদেরও অস্ত্র পরিষ্কারের এবং রকেট হামলার শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে।

৩০০ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ২০২০ সালে ইয়েমেন যুদ্ধে নিহত হওয়া ১৪০৬ জন শিশুযোদ্ধার নামের তালিকা জাতিসংঘের হাতে এসেছে। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে মে মাসের মধ্যে নিহত হয়েছে আরও ৫৬২ জন শিশুযোদ্ধা। তাদের তালিকাও পেয়েছে জাতিসংঘ। এসব যোদ্ধার বয়স ১০ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে।


জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতে বহুবছর ধরে এক সন্তান নীতিতে অটল ছিল চীন। কিন্তু পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করেছে। দিন দিন দেশটিতে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রয়োজনীয় শ্রম শক্তির যোগান দিতে এখন বেশি বেশি সন্তান নিতে উৎসাহিত করছে চীন সরকার।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি চীনের প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান দা বেই নং টেকনোলজি গ্রুপ ঘোষণা দিয়েছে, তিনটি সন্তানের জন্ম দিলে কর্মীদের বেতনসহ এক বছর ছুটি দেওয়া হবে। সঙ্গে আর্থিক বোনাস দেওয়া হবে ১২ লাখ টাকা। এছাড়া বাবা হওয়া পুরুষ কর্মীদের ৯ মাসের ছুটি দেওয়ার কথা জানানো হয়।

শুধু তাই নয়, প্রথম ও দ্বিতীয় সন্তানের ক্ষেত্রেও বোনাস দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। এ ক্ষেত্রে প্রথম সন্তানের জন্য ৩০ হাজার ইউয়ান যা বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৪ লাখার টাকার বেশি। এছাড়া দ্বিতীয় সন্তানের ৬০ হাজার ইউয়ান বা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৮ লাখ টাকা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে সংস্থাটি।

মূলত জন্মহার বাড়াতে সরকারিভাবে উৎসাহ দেখানোর পর এগিয়ে আসছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও।

বহু দশক ধরে কঠোরভাবে ‘এক সন্তান নীতি’ অনুসরণের পর ২০১৬ সালে চীন সেটি বাতিল করে দ্বিতীয় সন্তান নেওয়ার অনুমতি দেয় চীন সরকার। পরবর্তীতে ২০২১ সালে সরকার তিন সন্তান নেওয়ারও উৎসাহ দেয়। তারই পরিপেক্ষিতে  প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি এই ঘোষণা দিল।

এছাড়া দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারও সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য বিভিন্ন পুরস্কার ও সুযোগ-সুবিধা চালু করেছে যেখানে আর্থিক সুবিধা দেওয়ার পাশাপাশি ৯৮ দিনের বেতনসহ মাতৃত্বকালীন ছুটিও দেওয়া হচ্ছে।



নাটকের জনপ্রিয় মুখ মেহজাবিন চৌধুরী এবার ফিল্মে অভিনয় করছেন। তবে এটা পূর্ণদৈর্ঘ চলচ্চিত্র না। এটি ওয়েব ফিল্ম। 

সম্প্রতি দেশের  ওটিটি প্ল্যাটফর্ম চরকি এক মেইল বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মেহজাবিন চৌধুরীর কারাগারে থাকার একটি ছবি পাঠিয়েছে। তবে  যেখানে কোনো তথ্য সরবরাহ না করে দর্শকদের কৌতুহলী রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। 

প্লাটফর্মটির ফেসবুক পেজেও পোস্ট করা হয়েছে ছবিটি। সেখানেও কৌতুহলী ক্যাপশন।  তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এটি একটি ওয়েব ফিল্মের স্থিরচিত্র। যাতে মেহজাবিনের বিপরীতে থাকছেন আফরান নিশো। আরও থাকবেন মনোজ প্রামাণিক। 

ইতোমধ্যে ওয়েব ফিল্মটি দৃশ্যধারণ শেষ হয়েছে। এটি পরিচালনা করেছেন ভিকি জাহেদ। 

ওয়েব ফিল্মে গল্প কী নিয়ে তা জানা না গেলেও, নিশো নাকি মনোজ কার কারণে জেলে মেহজাবীন? তা জানতে দর্শকদের অপেক্ষা করতে হবে থ্রিলার নির্মাণে খ্যাতি পাওয়া ভিকি জাহেদের ওপর।





আদালতের নির্দেশ পাওয়ার পরেও ইভ্যালির ধানমন্ডি অফিসের দুটি লকারের পাসওয়ার্ড পরিচালনা বোর্ডকে সরবরাহ করেনি কর্তৃপক্ষ। আজ সোমবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ভাঙা হয়। এরপর সেখানে বিভিন্ন বেসরকারি ব্যাংকের চেক পাওয়া গেছে।

এর আগে সোমবার দুপুরে ইভ্যালির ধানমন্ডি কার্যালয়ে যান প্রতিনিধি দলের সদস্যরা।

পরে দুপুর ৩টার দিকে ইভ্যালির কার্যালয় থেকে লকারগুলো বের করা হয়। লকার ভাঙার জন্য ধানমন্ডিতে ইভ্যালি কার্যালয়ে উপস্থিত আছেন আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ও ঢাকা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসফিয়া সিরাত।

লকারটি ভাঙার আগে আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, গত ২৩ নভেম্বর কারাগারে থাকা ইভ্যালির মো. রাসেল ও তার স্ত্রী নাসরিনকে ধানমন্ডি কার্যালয়ে লকারগুলোর কম্বিনেশন নম্বর (পাসওয়ার্ড) দেওয়ার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। আদালতের নির্দেশিত ইভ্যালির নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালকের প্রতিনিধিকে তাড়াতাড়ি তাদের সঙ্গে দেখা করার ব্যবস্থা করতেও আইজি প্রিজনকে নির্দেশ দেন।

প্রথম লকার ভাঙতে সময় লাগে ৪৫ মিনিট। পরে লকারের ভেতর পাওয়া যায় সিটি ব্যাংক, মিডল্যান্ড ব্যাংকের বেশ কয়েকটি ব্লাংক চেক, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও বাচ্চাদের পড়ার বই। ‌ লকারে কোনো ধরনের অর্থ পায়নি বোর্ড।

তার আগে ইভ্যালির লকারে কী আছে সেটি জানতে পাসকোড চাওয়া হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটির সিইও মো. রাসেলের কাছে। বোর্ডের কাছে তিনি তা দিতে অস্বীকার করেন। পরে বোর্ড সিদ্ধান্ত নেন লকার ভাঙার।

প্রসঙ্গত, অগ্রিম টাকা নিয়ে পণ্য সরবরাহ না করার দায়ে ইভ্যালির সাবেক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেল ও তার স্ত্রী ইভ্যালির সাবেক চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়েছে। গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে রাসেল ও শামীমাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর থেকে তারা কারাগারে রয়েছেন।



ঘরের মাঠে আজ বিশাল স্কোর গড়েছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দুই শ ছাড়ানো সেই স্কোরের জবাব ভালোই দিচ্ছিল সিলেট। একপর্যায়ে তাদের জয় দেখছিলেন অনেকে। কিন্তু সব সম্ভাবনায় জল ঢেলে দেন মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী।

২০ বছর বয়সী চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের এই পেস বোলিং অল-রাউন্ডার আসরের প্রথম হ্যাটট্রিক উপহার দিয়েছেন। একে একে তুলে নিয়েছেন দারুণ খেলতে থাকা এনামুল হক বিজয়, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত আর রবি বোপারাকে। চট্টগ্রাম জিতেছে ১৬ রানে।

প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ পুরস্কার জেতা মৃত্যুঞ্জয় তাঁর দুর্দান্ত পারফরম্যান্স সম্পর্কে বলেন, সত্যি কথা বলতে গেলে প্রথমদিকে নার্ভাস ছিলাম না। প্রথমদিকে আমার পরিকল্পনায় ছিল যে ইয়র্কারটা ভালোভাবে করব। প্রথম ওভারে এক্সিকিউশনটা খুব ভালো হয়েছে। এ কারণে কোনো প্রেশার ছিল না। আর আমার কনফিডেন্স ছিল যে প্রথমদিকে যেহেতু দুটি ওভার ভালো হয়েছে, ইয়র্কার খুব ভালো পড়ছিল এ কারণে শেষের দিকে খুব ভালো আত্মবিশ্বাস ছিল যে ইয়র্কারটা খুব ভালো পড়বে। তো সেটা পড়েছে।  

তিনি বলেন, ক্যাপ্টেন অসাধারণ একটা পরিকল্পনা দিয়েছিলেন, স্টাম্প টু স্টাম্প বল করার। প্রথম ওভারটা হয়তো ওরকম হয়নি, তবে ট্রাই করেছি এবং পরবর্তী ওভারগুলোতে ইয়র্কার হয়েছে।  

স্বপ্নের কথা বলতে গিয়ে এই তরুণ বলেন, প্রত্যেক খেলোয়াড়ের স্বপ্ন থাকে পাঁচ উইকেট এবং হ্যাটট্রিক। তবে এরকম লেভেলে প্রথম ম্যাচে নেমেই এক্সপেক্ট করিনি। তবে এক্সিকিউশন যেহেতু ভালো হয়েছে সে ক্ষেত্রে প্রাপ্তি বলা যায়।


আগের দিন সিলেট সানরাইজার্সের বিপক্ষে ম্যাচ খেলতে মাঠে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন যখন, তখনই মেহেদী হাসান মিরাজের জন্য 'বিনা মেঘে বজ্রপাত' হয়ে আসে ঘটনাটি।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স দল হোটেল ছাড়ার আগে হুট করে তাঁকে জানিয়ে দেওয়া হয়, তিনি আর দলটির অধিনায়ক নন। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ অলরাউন্ডার বিপিএলই আর খেলবেন না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রবিবার দুপুরে যোগাযোগ করা হলে মিরাজ কালের কণ্ঠকে বলেন, 'বিপিএল খেলব না ভাই।

নিজের সিদ্ধান্তের কথা ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকেও (বিসিবি) জানিয়েছেন তিনি, 'আমি প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই দল ছেড়ে যাচ্ছি। দলকে ই-মেইল করেছি। ই-মেইল করেছি বিসিবির প্রধান নির্বাহীকেও। ' তাতে অবশ্য ভিন্ন কারণ উল্লেখ করেছেন। কিন্তু সেটি যে আসল কারণ নয়, সেটিও তাঁর কথাতেই স্পষ্ট, 'ই-মেইলে মায়ের অসুস্থতার কথা বলেছি যদিও। 

কিন্তু চট্টগ্রামের ম্যানেজমেন্ট জাতীয় দলের ক্রিকেটারের মানহানি করেছে। এ রকমটা তারা আগেরবারও করেছে। এমন তো নয় যে আমি বাজে খেলেছি বা দল খারাপ করেছে। আমিও পারফর্ম করেছি, দলও এই ম্যাচের আগে পয়েন্ট টেবিলে দুই নম্বরে ছিল। বলা নেই কওয়া নেই - এভাবে আমাকে সরিয়ে দেওয়াটা মেনে নিতে পারছি না। আমি খেলবই না। '

তাঁকে রহস্যজনকভাবে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার ক্ষোভে রবিবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার ফ্লাইটে তিনি চট্টগ্রাম ছাড়বেন বলেও জানিয়েছেন মিরাজ নিজেই। চট্টগ্রামের চিফ অপারেটিং অফিসার ইয়াসির আলম আগের দিন অধিনায়ক বদলের ব্যাখ্যায় সংবাদমাধ্যমকে বলেছিলেন, দল ছেড়ে যাওয়া হেড কোচ পল নিক্সনের পরামর্শেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

কিন্তু নিক্সনের বিদায়ী সভায় এ রকম কিছুই ইংলিশ কোচকে বলতে শোনেননি বলেও জানান মিরাজ, 'ওই সভায় আমিও ছিলাম। অনেক কথা হয়েছে, কিন্তু কোচকে এ রকম কিছুই বলতে শুনিনি। বরং আমার নেতৃত্ব এবং পারফরম্যান্স নিয়ে উচ্ছ্বসিতই ছিলেন। '

এদিকে মিরাজের চলে যাওয়া বিষয়ে দল অবগত কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের সিওও ইয়াসির বলেন, 'মিরাজ চলে যাচ্ছে এটি আমরা মিডিয়াতেই দেখেছি। আমাদের সঙ্গে এখনো কোনো কথা হয়নি। একটু পরেই আমরা ওর সঙ্গে বসব। '


ইংল্যান্ডের পর ভারতের বোলিংয়ের সামনেও মুখ থুবড়ে পড়ল বাংলাদেশের ব্যাটিং। যুব বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ধুঁকতে ধুঁকতে কোনোমতে একশ পার করল তারা। 

বোলাররা যা নিয়ে কিছুটা লড়াইও করলেন, তবে তা যথেষ্ট হলো না। তাদের শিরোপা ধরে রাখার অভিযান থামিয়ে এগিয়ে গেল টুর্নামেন্টে এখনও অপরাজিত ভারত।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের শেষ কোয়ার্টার-ফাইনালে শনিবার ভারতের জয় ৫ উইকেটে। কদিন আগে যুব এশিয়া কাপের সেমি-ফাইনালেও বাংলাদেশকে হারিয়েছিল ভারত।

গত আসরের দুই ফাইনালিস্ট এবারও ছিল ফেভারিটদের কাতারে। তবে দল দুটির লড়াইয়ে ছড়াল না উত্তেজনা। ব্যাটিং ব্যর্থতায় গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৯৭ রানে গুটিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ এবার করল স্রেফ ১১১ রান। ১১৫ বল বাকি থাকতেই জয়ের ঠিকানায় পৌঁছে গেল ভারত।

অ্যান্টিগার কুলিজ ক্রিকেট মাঠে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৩০ রান করেন আট নম্বরে নামা মেহরব হাসান। আর কেবল দুই ব্যাটসম্যান যেতে পারেন দুই অঙ্কে।

বাংলাদেশের ব্যাটিং ধসিয়ে দেওয়ার কারিগর রবি কুমার। কেবল ১৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেওয়া বাঁহাতি এই পেসারই জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। দুটি উইকেট নেন বাঁহাতি স্পিনার ভিকি ওসওয়াল।

রান তাড়ায় শূন্য রানে উইকেট হারানো ভারতকে ৭০ রানের জুটিতে জয়ের দিকে এগিয়ে নেন অংকৃশ রঘুভানশি ও করোনাভাইরাস থেকে সেরে উঠে দলে ফেরা শেখ রশিদ।

প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে রবির তোপের মুখে পড়ে বাংলাদেশ। তার দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১৪ রানেই টপ অর্ডার তিন ব্যাটসম্যানকে হারায় দলটি।

ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারে আক্রমণে এসে মাহফিজুল ইসলামকে বোল্ড করে দেন রবি। সুইং করে ভেতরে ঢোকা ফুল লেংথ বল মিডউইকেট দিয়ে খেলতে যান এই ওপেনার। ব্যাটের কানা নিয়ে বল ছোবল দেয় স্টাম্পে।

নিজের তৃতীয় ওভারে রবি ধরেন ইফতেখার হোসেনের শিকার। অফ স্টাম্পের বাইরের বল কাট শট খেলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে সহজ ক্যাচ দেন ইফতেখার। পরের ওভারে রবি ফেরান প্রান্তিক নওরোজ নাবিলকে। সুইং করে বেরিয়ে যাওয়া ফুল লেংথ বল ড্রাইভ করে প্রথম স্লিপে ধরা পড়েন নাবিল।

ওসওয়াল এক ওভারেই ফিরিয়ে দেন আরিফুল ইসলাম ও মোহাম্মদ ফাহিমকে। তার বাঁহাতি স্পিনে আরিফুল হন কট বিহাইন্ড। ফাহিম ফেরেন দৃষ্টিকটু শট খেলে; মুখোমুখি হওয়া তৃতীয় বলেই তিনি রিভার্স সুইপ করে হন বোল্ড। 

টিকতে পারেননি অধিনায়ক রকিবুল হাসানও। কুশাল তাম্বের বলে হন এলবিডব্লিউ। দীর্ঘক্ষণ উইকেটে কাটিয়ে আইচ মোল্লা কাটা পড়েন রান আউটে।

৫৬ রানে ৭ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ওই সাত ব্যাটসম্যানের মধ্যে দুই অঙ্কে যেতে পারেন কেবল আইচ (৪৮ বলে ১৭)।

অল্পতে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় পড়া বাংলাদেশ একশ পার হয় মেহরব ও আশিকুর জামানের ব্যাটে। অষ্টম উইকেটে ৫০ রানের জুটি গড়েন দুজন।

তাদের প্রতিরোধ ভাঙে ৪৮ বলে ৬ চারে ৩০ রান করা মেহরবের বিদায়ের। রঘুভানশির অফ স্টাম্পের বাইরের বল উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে খেলার চেষ্টায় স্টাম্পড হন তিনি। ওই ওভারেই বাউন্ডারি থেকে সিদ্ধার্থ যাদবের সরাসরি থ্রোয়ে রান আউট হয়ে যান আশিকুর।

রান তাড়ায় নামা ভারত শিবিরে দ্বিতীয় ওভারেই ছোবল দেন তানজিম হাসান। হারনুর সিংকে কট বিহাইন্ড করে শূন্য রানে ফেরান এই পেসার।

রঘুভানশি ও রশিদের ব্যাটে ওই ধাক্কা সামাল দিয়ে এগিয়ে যায় ভারত। সাবধানী ব্যাটিংয়ে তারা এগিয়ে নেন দলকে।

২০তম ওভারের শেষ বলে রঘুভানশিকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন রিপন। নিজের পরের ওভারের প্রথম বলে এই পেসার কট বিহান্ড করেন রশিদকে। সম্ভাবনা জাগান হ্যাটট্রিকের। শেষ পর্যন্ত যদিও তা হয়নি।

পরের দুই ওভারে আরও দুটি শিকার ধরেন রিপন। ফিরিয়ে দেন সিদ্ধার্থ যাদব ও রাজ বাওয়াকে। ততক্ষণে অবশ্য জয়ের কাছে পৌঁছে যায় ভারত। ২৬ বলে ৪ চারে ২০ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হয়ে ফেরা নিয়মিত অধিনায়ক যশ ধুল। ছক্কায় দলকে জিতিয়ে ১১ রান নিয়ে মাঠ ছাড়েন তাম্বে।

৩১ রান খরচায় ৪ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সফলতম বোলার রিপন।

প্রথম সেমি-ফাইনালে আগামী মঙ্গলবার মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড ও আফগানিস্তান। পরদিন দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে লড়বে ভারত।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯: ৩৭.১ ওভারে ১১১ (মাহফিজুল ২, ইফতেখার ১, নাবিল ৭, আইচ ১৭, আরিফুল ৯, ফাহিম ০, রকিবুল ৭, মেহরব ৩০, আশিকুর ১৬, তানজিম ২, রিপন ২*; রাজবর্ধন ৭.১-০-১৯-১, রবি ৭-১-১৪-৩, বাওয়া ৬-১-১৬-০, ওসওয়াল ৯-১-২৫-২, তাম্বে ৬-০-২৭-১, রঘুভানশি ২-১-৪-১)

ভারত অনূর্ধ্ব-১৯: ৩০.৫ ওভারে ১১৭/৫ (রঘুভানশি ৪৪, হারনুর ০, রশিদ ২৬, ইয়াশ ২০*, সিদ্ধার্থ ৬, বাওয়া ০, তাম্বে ১১*; আশিকুর ৬-১-২২-০, তানজিম ৭-১-৩৪-১, রিপন ৯-১-৩১-৪, রকিবুল ৮.৫-২-৩০-০)

ফল: ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দল ৫ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: রবি কুমার


সিনেমায় ভিলেনদের কাঁদিয়ে নাকানিচুবানি খাওয়ানো সালমান খানের মন গলে গেল বাস্তবে। পাঞ্জাবি অভিনেত্রী শেহনাজ গিলকে দেখে কাঁদলেন সালমান।

সম্প্রতি রিয়্যালিটি শো ‘বিগ বস ১৫’-এর চূড়ান্ত পর্বে অতিথি হয়ে এসেছিলেন শেহনাজ। মঞ্চে সঞ্চালক সালমানকে তিনি বলেন, ‘আপনাকে দেখে আমি আবেগপ্রবণ হয়ে যাই। অনেক কিছু মনে পড়ে গেল।’ 


এর পরই কাঁদতে শুরু করেন এ অভিনেত্রী। শেহনাজের কান্না দেখে নিজেকে সামলাতে পারেননি সালমানও। চোখ ছলছল করে ওঠে তার।  চোখের জল গড়িয়ে পড়ে বলি ভাইজানের।  শোকের আবহ বইতে থাকে গোটা পরিবেশে। 

অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লার কথা স্মরণ করেই এমন শোকের মাতম বয়ে যায় ‘বিগ বস ১৫’-এর মঞ্চে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আচমকা পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন সিদ্ধার্থ শুক্লা।

সিদ্ধার্থ ছিলেন শেহনাজের প্রেমিক। ‘বিগ বস’-এর মাধ্যমেই সিদ্ধার্থের সঙ্গে শেহনাজের পরিচয় হয়। শোয়ের ১৩তম সিজনে দুজনের বন্ধুত্ব প্রেমের দিকে গড়ায়।

প্রেমিকের হঠাৎ মৃত্যুতে মুষড়ে পড়েন শেহনাজ। বেশ কিছু দিন পর্দার বাইরে ছিলেন তিনি।  ধীরে ধীরে ফিরেছেন সাধারণ জীবনে। এবার বিগ বস’—এর মঞ্চে ফিরে স্মৃতিকাতর হয়ে পড়েন তিনি। এই মঞ্চেই সিদ্ধার্থকে পেয়েছিলেন, আবার এই মঞ্চেই হারালেন।  

কান্নায় ভেঙে পড়তে থাকা শেহনাজকে সান্ত্বনা দিতে তাকে আলিঙ্গন করেন সালমান খান। নিজেকে আটকানোর চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত কেঁদে ফেলেন সালমানও।  রুমাল দিয়ে চোখের জল মোছার চেষ্টা করেন।



প্রসঙ্গত গত বছরের অক্টোবরে সিদ্ধার্থকে নিয়ে ‘তু ইয়েহি হ্যায় (তুমি এখানেই আছ)’ শিরোনামে গান লিখেছিলেন শেহনাজ। আরও একবার সিদ্ধার্থের জন্য অনুষ্ঠানে এ গান গাইবেন তিনি। শেহনাজকে ফের ‘বিগ বস’-এর মঞ্চে দেখে আপ্লুত তার অনুরাগীরা।


ওমিক্রনের প্রভাবে টানা চারদিন ১৫ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হবার পর পঞ্চম দিনে রোগী সংখ্যা কমে এসেছে। কমেছে নমুনা পরীক্ষাও। শনাক্ত রোগী সংখ্যা কমলেও গত ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের চেয়েও বেশি মৃত্যু হয়েছে।  ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হারও ৩১ শতাংশের ওপরে।

শনিবার (২৯ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় (২৮ জানুয়ারি সকাল ৮টা থেকে ২৯ জানুয়ারি সকাল ৮টা ) করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৩৭৮ জন। শুক্রবার ১৫ হাজার ৪৪০ জন শনাক্তের তথ্য জানিয়েছিল অধিদফতর। এছাড়া গত ২৭ জানুয়ারি ১৫ হাজার ৮০৭ জন, ২৬ জানুয়ারি ১৫ হাজার ৫২৭ জন আর ২৫ জানুয়ারি ১৬ হাজার ৩৩ জন রোগী শনাক্ত হয়েছিল।

নতুন শনাক্ত হওয়া ১০ হাজার ২৩০ জনকে নিয়ে দেশে সরকারি হিসেবে এখন পর্যন্ত করোনাতে মোট শনাক্ত হলেন ১৭ লাখ ৭৩ হাজার ১৪৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার ২০ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল অধিদফতর। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ২৮ হাজার ৩২৯ জন মারা গেলেন।

আর গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ১০ শতাংশ। করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক হাজার ১০৯ জন। তাদের নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত মোট ১৫ লাখ ৬৩ হাজার ৪৭৮ জন সুস্থ হয়ে উঠলেন বলে জানাচ্ছে অধিদফতর।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৩৩ হাজার ২৩০টি আর নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩৩ হাজার ৩৭৩টি। যেখানে শুক্রবার ৪৬ হাজার ২৯২টি নমুনা সংগ্রহ ও ৪৬ হাজার ২৬৮টি  নমুনা পরীক্ষার তথ্য জানায় স্বাস্থ্য অধিদফতর।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে এক কোটি ২৩ লাখ ৯০ হাজার ৩১৮টি। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৮৪ লাখ ২৭ হাজার ৯৫৭টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৩৯ লাখ ৬২ হাজার ৩৬১টি। দেশে এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৩১ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৮ দশমিক ১৮ শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যু হার এক দশমিক ৬০ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২১ জনের মধ্যে পুরুষ ১৪ জন, নারী সাত জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৮ হাজার ১০২ জন,  নারী মারা গেলেন ১০ হাজার ২২৭ জন।

গত ২৪  ঘণ্টায় মতদের মধ্যে  ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী ছয় জন।  ৬১ থেকে ৭০ বছর বয়সী পাঁচ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছর বয়সী চার জন আর ৫১ থেকে ৬০ ও ৮১ থেকে ৯০ বছর বয়সী তিন জন করে। ২১ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে সর্বোচ্চ মানুষের মৃত্যু হয়েছে; ১২ জনের। এরপর চট্টগ্রাম ও রংপুর বিভাগের দুজন করে আর রাজশাহী, বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগে মারা গেছেন একজন করে। মৃতদের মধ্যে ১৮ জনেরই মৃত্যু হয়েছে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়। আর বাকি তিনজনের মৃত্যু হয়েছে বেসরকারি হাসপাতালে।


চলতি মাসে সপ্তম দফায় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করেছে উত্তর কোরিয়া। ধারণা করা হচ্ছে, নতুন এই পরীক্ষা ২০১৭ সালের পর দেশটির বৃহত্তম ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা।

রোববার স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ৫২ মিনিটে এই পরীক্ষা করা হয় বলে জানায় দক্ষিণ কোরিয়ার সম্মিলিত বাহিনীর প্রধানদের কমিটি জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ।

জাপানের মন্ত্রিসভার চিফ সেক্রেটারি হিরোকাজু মাতসুনো এক টেলিভিশন ভাষণে জানান, নিক্ষিপ্ত রকেটটি দুই হাজার কিলোমিটার উঁচু দিয়ে ৩০ মিনিটে উড়ে আট শ’ কিলোমিটার দূরত্ব পাড়ি দিয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার পক্ষ থেকেও একই ধরণের উচ্চতা ও দূরত্বের হিসাব জানানো হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে নিক্ষিপ্ত ক্ষেপণাস্ত্রটি দীর্ঘপাল্লার ইন্টারমেডিয়েট রেঞ্জের ব্যালিস্টিক মিসাইল (আইআরবিএম) বলে ধারণা করা হচ্ছে। সর্বশেষ ২০১৭ সালে এই ধরনের ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করে উত্তর কোরিয়া।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক থিংক ট্যাংক কার্নেজ এনডওম্যান্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিসের কর্মরত নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ অঙ্কিত পান্ডা এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘২০১৭ সালের নভেম্বরের পর এটিই বৃহত্তম মিসাইল পরীক্ষা।’

জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার নতুন এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের নিন্দা জানিয়েছে।

জাতিসঙ্ঘ উত্তর কোরিয়ার ব্যালিস্টিক ও পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রাখলেও পূর্ব এশিয়ার দেশটি প্রায়ই এই নিষেধাজ্ঞা ভেঙে আসছে।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন দেশটির সামরিক বাহিনীর সামর্থ্য বাড়ানোর জন্য এবং এর অস্ত্রভাণ্ডার আধুনিকায়নের জন্য অঙ্গীকার করেছেন।

পরমাণু শক্তিধর উত্তর কোরিয়া নতুন এই পরীক্ষা এমন সময় করলো যখন প্রতিবেশী চীনের বেইজিংয়ে শীতকালীন অলিম্পিক শুরু হওয়ার প্রস্তুতি চলছে। অপরদিকে উত্তর কোরিয়ার সাবেক নেতা ও বর্তমান নেতার বাবা কিম জং ইলের ৮০তম জন্মবার্ষিকী পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছে পিয়ংইয়ং।

জানুয়ারিতে উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের জেরে দেশটিতে নতুন আরো নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সময় যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে শান্তি আলোচনা শুরু হয়েছিলো। কিন্তু গত বছর জো বাইডেনের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই তা স্থবির হয়ে পড়ে।

সূত্র : আলজাজিরা ও বিবিসি


জাতীয় সংসদে পাস হওয়া প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল–২০২২–এর গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে আজ রোববার।

গত ২৭ জানুয়ারি আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সংসদে বিলটি উত্থাপন করেন এবং এটি কণ্ঠভোটে পাস হয়।

গেজেট অনুযায়ী প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন ২০২২ অনতিবিলম্বে কার্যকর হবে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারদের শূন্য পদে নিয়োগ দিতে রাষ্ট্রপতি এই আইনে বর্ণিত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের নাম সুপারিশ করতে ৬ সদস্যের অনুসন্ধান কমিটি গঠন করবেন। সদস্যরা হবেন প্রধান বিচারপতি মনোনীত আপিল বিভাগের একজন বিচারক, প্রধান বিচারপতি মনোনীত হাইকোর্ট বিভাগের একজন বিচারক, বাংলাদেশের মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রপতি মনোনীত ২ জন বিশিষ্ট নাগরিক, যাদের মধ্যে একজন হবেন নারী।

এই কমিটি গঠনের ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তারা তাদের সুপারিশ রাষ্ট্রপতির কাছে জমা দেবে।

আইন অনুযায়ী, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারের জন্য যোগ্যতা হচ্ছে:

  • বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে
  • বয়স ন্যূনতম ৫০ বছর হতে হবে
  • কোনো গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধা-সরকারি, বেসরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত পদে বা পেশায় অন্যূন ২০ বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

আইন অনুযায়ী, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারের জন্য অযোগ্যতা হচ্ছে:

  • কোনো উপযুক্ত আদালত কর্তৃক অপ্রকৃতিস্থ ঘোষিত হলে
  • দেউলিয়া ঘোষিত হওয়ার পর দায় থেকে অব্যাহতি না পেলে
  • অন্য কোনো দেশের নাগরিকত্ব পেলে
  • নৈতিক স্বলনজনিত কোনো ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে 
  • International Crimes (Tribunals Act, 1973 (Act No. XIX of 1973) বা Bangladesh Collaborators (Special) Tribunals Order, 1972 (President's Order No. 8 of 1972) এর অধীন যেকোনো অপরাধের জন্য দণ্ডিত হলে
  • আইনের দ্বারা পদাধিকারীকে অযোগ্য ঘোষণা করছে না, এমন পদ ব্যতীত তিনি প্রজাতন্ত্রের কাজে কোনো লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত থাকলে।

এ আইন অনুযায়ী অনুসন্ধান কমিটি গঠন করে দিতে পারেন রাষ্ট্রপতি। সেই কমিটি পরবর্তী নির্বাচন কমিশনের সদস্যদের নাম প্রস্তাব করবে। কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি শেষ হবে।


ইউক্রেন নিয়ে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে রাশিয়ার ওপর চাপ বাড়ানোর বিকল্প হিসেবে পূর্ব ইউরোপে মোতায়েন করা সেনা সংখ্যা দ্বিগুণ করার প্রস্তাব বিবেচনা করছে যুক্তরাজ্য।

রোববার (৩০ জানুয়ারি) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আগামী সপ্তাহে পূর্ব ইউরোপের অঞ্চলটি পরিদর্শন করবেন এবং রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে ফোনে কথা বলবেন। নর্ডিক্স এবং বাল্টিক্সে ন্যাটো প্রতিরক্ষা চুক্তির সদস্যদের জন্য সম্ভাব্য সেনা প্রস্তাব বিবেচনা করছেন তিনি। যেমন- সেনা সংখ্যা দ্বিগুণ করা এবং এস্তোনিয়ায় প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্র পাঠানো।

বরিস বলেন, এটি ক্রেমলিনের কাছে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাবে যে, আমরা তাদের অস্থিতিশীল কার্যকলাপ সহ্য করব না এবং সবসময় ন্যাটো মিত্রদের পাশে থাকব। আমি আমাদের সশস্ত্র বাহিনীকে আগামী সপ্তাহে ইউরোপজুড়ে মোতায়েনের প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দিয়েছি।

যুক্তরাজ্যের কর্মকর্তারা আগামী সপ্তাহে ব্রাসেলসে এই প্রস্তাবের বিস্তারিত চূড়ান্ত করবেন। মন্ত্রীরা সোমবার (৩১ জানুয়ারি) সামরিক বিকল্পগুলো নিয়ে আলোচনা করবেন।


এছাড়াও যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা খুব শিগগির তাদের রুশ সহযোগীদের সঙ্গে আলোচনার জন্য মস্কোতে যাবেন। তাদের সম্পর্কের উন্নতি এবং উত্তেজনা কমানো এই সফরের লক্ষ্য।


অন্তর্বাস নিয়ে মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী শ্বেতা তিওয়ারি।

এই অভিনেত্রীর পরবর্তী ওয়েব সিরিজ ‘শো টপার’। ফ্যাশন জগত নিয়ে এটি নির্মিত। ওয়েব সিরিজটির প্রচারে মধ্যপ্রদেশের ভোপালে গিয়েছিলেন শ্বেতা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, সেখানেই সাংবাদিকের এক প্রশ্নের উত্তরে হাসতে হাসতে শ্বেতা বলেছেন, ‘ভগবান আমার ব্রা এর মাপ নিচ্ছে।’



শ্বেতার এই মন্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। এরপরই বিতর্কের ঝড় ওঠে। এমনকি ভোপালের শ্যামালা হিলস থানায় এই অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সেই রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্রা।

তবে বিতর্কিত মন্তব্যটি অনিচ্ছাকৃত ভুল বলে জানিয়েছেন শ্বেতা। এজন্য ক্ষমা চেয়েছেন তিনি। এই অভিনেত্রী জানান, ‘ভগবান’ বলতে তিনি সৃষ্টিকর্তার কথা বোঝাননি। তার দাবি, ওয়েব সিরিজে তার সহ-অভিনেতা সৌরভ রাজ যেহেতু আগে শ্রী কৃষ্ণের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন, তাই ভগবান বলতে তিনি সৌরভকেই বুঝিয়েছেন। সিরিজে সৌরভ এক অন্তর্বাস প্রস্তুতকারি দর্জির ভূমিকায় রয়েছেন।

ক্ষমা চেয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শ্বেতা লিখেছেন, ‘আমি নিজে সৃষ্টিকর্তায় বিশ্বাসী। তাই সৃষ্টিকর্তাকে অপমান করে কোনো মন্তব্য আমি করব না। যদি কাউকে আঘাত করে থাকি আমি ক্ষমা চাইছি। আমি এরকম কথা বলতে চাইনি।’

শ্বেতা তিওয়ারি টেলিভিশন নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমে শোবিজ অঙ্গনে পা রাখেন। টিভি সিরিয়ালে অভিনয় করে অল্প সময়ের মধ্যে পরিচিতি লাভ করেন তিনি। পরবর্তী সময়ে সিনেমায় নাম লেখান। হিন্দি, কন্নড়, পাঞ্জাবি, মারাঠিসহ বিভিন্ন ভাষার সিনেমায় অভিনয় করেন এই অভিনেত্রী।

Holy Foods ads

Holy Foods ads

যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget