অপূর্ব আফিফ ম্যাজিক্যাল মিরাজ | ৪ উইকেটে জিতে গেল বাংলাদেশ | Apurba Afif Magical Mirage | Bangladesh won by 4 wickets


চট্টগ্রাম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২: বাংলাদেশের  জয়ের পিছনে  আফিফ হোসেন-মেহেদি হাসান মিরাজ জুটিকে পুরো কৃতিত্ব  দিয়েছেন আফগানিস্তান অধিনায়ক হাসমতউল্লাহ শাহিদি।  এ জুটির অসাধারন  ব্যাটিং নৈপুন্যে  চার উইকেটের অবিশ^াস্য  জয় পায় স্বাগতিক বাংলাদেশ।  

প্রথমে ব্যাট করে ৪৯ দশমিক ১ ওভারে ২১৫ রানে অলআউট হয় আফগানিস্তান। এরপর অনেকেরই বিশ^াস ছিল ২১৬ রানের টার্গেট সহজেই টপকে যাবে বাংলাদেশ।  কিন্তু লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ফজল হক ফারুকির বোলিং তোপে ৪৫ রানে ৬ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। 

এমন অবস্থায়  বাংলাদেশের জয় পাওয়াটা  বলতে গেলে  শেষই হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু আফিফ ও মিরাজ হাল ছাড়েননি। রশিদ খান, মুজিব উর রহমান এবং মোহাম্মদ নবির মতো সেরা  স্পিনারদের   বিপক্ষে দুর্দান্ত ব্যাট করে শেষ পর্যন্ত দলকে অবিশ^াস্য জয় এনে দেন আফিফ-মিরাজ। 

তাই ম্যাচ শেষে আফিফ-মিরাজের প্রশংসা করেছেন শাহিদি। তিনি বলেন, ‘আমাদের শুরুটা ভালো ছিল, কিন্তু তারা কোন সুযোগ না দিয়ে খুব ভালো খেলেছে, এক কথায় যা অবিশ্বাস্য।’

এ ম্যাচে ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলেছেন আফিফ-মিরাজ। ১১৫ বলে ১১টি চার ও ১টি ছক্কায় অপরাজিত ৯৩ রান করেন আফিফ। আর ১২০ বল খেলে ৯টি চারে অপরাজিত ৮১ রান করেন মিরাজ।



বাংলাদেশের পক্ষে সপ্তম ও ওয়ানডে ক্রিকেটে দ্বিতীয় সেরা ১৭৪ রানের  জুটি গড়েন আফিফ-মিরাজ। এ জুটির সামনে কেবলমাত্র ইংল্যান্ডের জশ বাটলার ও আদিল রশিদের ১৭৭ রান। ২০১৫ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৭৭ রানের জুটি গড়েছিলেন তারা। 

মিরাজ ও আফিফের প্রশংসা করতে গিয়ে আফগান অধিনায়ক বলেন, তার দলের   ব্যাটরার ভুল করেছে। তার মতে, তারা  ৩০ রান কম করেছে, যা ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিয়েছে।

শাহিদি বলেন, ‘আমরা ৩০ রান কম ছিলাম। কিন্তু ফজল যেভাবে শুরু করেছিলেন, তা ছিল দুর্দান্ত । তবে লড়াই করার কৃতিত্ব বাংলাদেশী দুই ব্যাটারের।’

নিজের ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেই বাংলাদেশকে চাপে ফেলে দিয়েছিলেন পেসার ফজলহক ফারুকি। ১৮ রানের মধ্যে বাংলাদেশের ৪ উইকেট  নিয়ে দলকে চালকের আসনে  তুলে দেন তিনি।

ফারকি তার দ্বিতীয় ওভারে জোড়া আঘাত হানেন। বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিম ইকবাল ও লিটন দাসকে আউট করেন তিনি। দু’জনকে রিভিউ নিয়ে বিদায় করেন ফারুকি। 

নিজের তৃতীয় ওভারে আবারও বাংলাদেশকে ডাবল ধাক্কা দেন ফারুকি। এবার মুশফিকুর রহিম ও অভিষেকে হওয়া ইয়াসির আলিকে শিকার করেন ফারুকি।

সাকিব আল হাসানকে ১০ রানে শিকার করেন স্পিনার মুজিব উর রহমান। উপরের সারির ব্যাটারদের মধ্যে সেরা ছয় জনের মধ্যে দুই অংক স্পর্শ করতে পেরেছেন  কেবলমাত্র সাকিব। 



আর মাহমুদুল্লাহর উইকেট তুলে নিয়ে আফগানিস্তানকে টানা সপ্তম ওয়ানডে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে গিয়েছিলেন রশিদ খান। 

ফারুকির প্রশংসা করে শাহিদি জানান, ক্যারিয়ারের শুরুতে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করছেন তিনি।

শাহিদি বলেন, ‘সে দুর্দান্ত বোলিং করেছে। কিন্তু আমরা তাকে যথার্থ সাহায্য  করতে পারিনি। যেভাবে ক্যারিয়ার শুরু করেছেন তাতে তার সামনে দুর্দান্ত ভবিষ্যত রয়েছে।’

শাহিদি আরও জানান, এই হতাশাজনক হারের পর সিরিজে ফিরতে মরিয়া তারা। তিনি বলেন, ‘এটি শুধুমাত্র শুরু। তবে আরও দু’টি ম্যাচ বাকি আছে এবং আমরা ফিরে আসবো।’

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget