রাঙ্গুনিয়ায় প্রেমিকার প্রেম প্রত্যাখান, এসিডে জবাব দিল প্রেমিক

 



রাঙ্গুনিয়ায় প্রেমিকার প্রেম প্রত্যাখান, এসিডে জবাব দিল প্রেমিক

দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক চলার পর প্রেমিকা জানতে পারে প্রেমিক বিবাহিত। আর বিবাহিত জানার পর প্রেমে প্রতারণার শিকার হয়ে প্রেমিকের কাছ থেকে সরে আসতে চায় প্রেমিকা ইয়াছমিন আকতার (২০)। দীর্ঘদিনের প্রেম প্রত্যাখান করে সরে আসায় ক্ষুব্ধ হয়ে রাতের আধাঁরে ঘরের জানালা দিয়ে এসিড ছুঁড়ে প্রেমিকার শরীর ঝলসে দিল প্রেমিক মোঃ আজিম (৩০) নামের এক বখাটে। 

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার (৪ মে) চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার বেতাগী ইউনিয়নের ডিঙ্গললোঙ্গো গ্রামে।

জানা গেছে, উপজেলার বেতাগী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড ডিঙ্গললোঙ্গো এলাকার আবুল বাশারের মেয়ে ইয়াছমিন আকতারের সাথে পার্শ্ববর্তী চন্দ্রঘোনা উপজেলার ৫ নং ওয়ার্ডের খাস্তাকাটা এলাকার রুহুল আমিননের বখাটে ছেলে আজিমের সাথে বছর খানেক আগে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। আজিম পেশায় একজন সিএনজি চালক। এক পর্যাযে ইয়াছমিন জানতে পারে আজিম বিবাহিত এবং তার ঘরে স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। বিষয়টি শোনার পর ইয়াছিন আজিমকে তা জানায়, আজিমও বিষয়টি স্বীকার করে। এরপর তাদের মধ্যে দূরত্ব তৈরী হয়, এবং ইয়াছমিন আজিমের কাছ থেকে সরে আসে। ঈদকে উপলক্ষ্য করে গতকাল রাতে ইয়াছমিনের সাথে জানালা দিয়ে দেখা করে বিয়ের প্রস্তাব দেয় আজিম। এতে ইয়াছমিন রাজি না হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে প্রেমিক আজিম এসিড ছুঁড়ে মারলে, মুহূর্তেই ঝলসে যায় ইয়াছমিনের শরীরে বিভিন্ন অঙ্গ। ভিকটিম বর্তমান চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। 

এ ঘটনায় ভিকটিমের বড় ভাই মোঃ আবু তাহের বাদী হয়ে রাতেই রাঙ্গুনিয়া থানায় মামলা করলে বৃহস্পতিবার (৫ মে) ভোরে পুলিশ আসামি মোঃ আজিমকে গ্রেফতার করে। 

এ ব্যাপারে ভিকটিমের ভাই মোঃ আবু তাহের বলেন, আমি রাত ২ টার দিকে হঠাৎ করে আমার বোনের চিৎকার শুনতে পেয়ে রুমে ছুটে গেলে দেখি আমার বোনের শরীরের অর্ধেক অংশ ঝলসে গেছে। আমার বোন জানায়- আজিম নামের এক বখাটে তাকে জানালা দিয়ে এসিড ছোডে মেরে পালিয়েছে। তখন বোনকে চিকিৎসার জনয় চন্দ্রঘোনার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আমার বোনের সুন্দর জীবন নষ্ট করে দিয়েছে বখাটে আজিম। এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

রাঙ্গুনিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহাবুব মিলকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এসিডের বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে কোনো দাহ্য প্রদার্থ দিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হওয়ার পর ভোরেই নিজ বাড়ি থেকে আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁকে আজ চট্টগ্রাম আদালতে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে এ ঘটনা ঘটিয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরো পড়ুন:


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget