মার্চ 2022

কমলনগরে এরশাদের ৯৩তম জন্ম বার্ষিকী পালিত
Ershad's 93rd birth anniversary was celebrated in Kamalnagar

লক্ষ্মীপুর কমলনগরে  জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি পল্লীবন্ধু হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের ৯৩তম জন্ম বার্ষিকী পালিত হয়েছে।

রবিবার (২০মার্চ) বিকালে কমলনগর উপজেলা  জাতীয় পার্টি স্থানীয় চর লরেন্স বাজার জামে মসজিদে  দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হাজি গিয়াস উদ্দিন,সাধারণ সম্পাদক ইমামুজ্জামান বাশার,জাতীয় পাটির নেতা হোসেন মুরি,আলমগীর হোসেন,রাজুসহ জাতীয় পার্টির ৯টি ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকগন।


দোয়া ও আলোচনা শেষে জাতির মঙ্গল কামনায় মোনাজাত করেন মাওলানা আক্রাম হোসেন।



আরো পড়ুন:



লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলায় নিবেদিতপ্রাণ ইউএনও কামরুজ্জামান 
Dedicated UNO Kamruzzaman in Kamalnagar upazila of Laxmipur district


লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলায় বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ কামরুজ্জামান  বিগত ২০২০ সালে যোগদান করার পরপরই অল্পসময়ের ব্যবধানে তিনি কমলনগরবাসীর মন জয় করেন খুব সহজেই । একজন মানবিক ও নিবেদিতপ্রাণ অফিসার হিসাবে কমলনগর  উপজেলার সর্বমহলে পরিচিতি লাভ করেছেন।

আমাদের দেশে সাধারণ মানুষ অনেক সময় প্রশাসনের সেবা থেকে বঞ্চিত হন, কারণ তারা ডিঙাতে পারেন না কর্মকর্তাদের অফিসের দরজা। সরকারি সেবা পাওয়া আর সোনার হরিণ মনে হয় সমান। দিনের পর দিন ঘুরে কাজ করাতে না পেরে মানুষ আস্থা হারাচ্ছে সরকারি অফিস ও অফিসারদের উপর। কিন্তু এর ব্যতিক্রমও আছেন। তেমনই একজন ব্যাতিক্রম বর্তমানে কমলনগর  উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন মোঃ কামরুজ্জামান। 


উপকূলীয় অঞ্চলে গঠিত নদী ভাংগনের শিকার  কমলনগর উপজেলা।  কিন্তু ভালো কাজ, ভালো ব্যবহার আর ভালোবাসা দিয়ে ইতোমধ্যেই মোঃ কামরুজ্জামান জয় করে নিয়েছেন উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের মন। ক্ষমতাবান মানুষ থেকে শুরু করে সাধারন দিনমজুর সবার কথা তিনি শোনের মনোযোগ সহকারে। সাধারণের জন্য নিজের অফিসের দ্বার অবারিত করতে তিনি নিয়েছেন ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ। 

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

সাধারণত যেখানে সরকারি কর্মকর্তাদের অফিসের দরজা ডিঙাতে না পারায় দেশের অধিকাংশ সাধারণ মানুষ প্রশাসনের সেবা থেকে বঞ্চিত হন। উপজেলা প্রশাসন ও সাধারণ মানুষের মধ্যে সেই দূরত্ব কমাতে মোঃ কামরুজ্জামান  নিজেই সাধারণত মানুষের সাথে কথা বলে তাদের নিজেদের কষ্টের কথা শুনেন। এবং সমাধানের করেন।


তাঁর কর্মকৌশল, ন্যায় নিষ্ঠা, সময়োপযোগী কর্মকাণ্ডের জন্য কমলনগরবাসীর মনের মণিকোঠায় স্থান লাভ করে চলেছেন। সরকারী সকল দিকনির্দেশনা বাস্তবায়নে সফলতার স্বাক্ষর রেখে যাচ্ছেন। বলতে গেলে অনেকটা করোনা ঝুঁকিকে মাথায় নিয়েই তাঁর কমলনগরে পদার্পণ। স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা মসজিদ মন্দির গীতা শিক্ষার স্কুলসহ সামাজিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে তিনি পদার্পণ করে থাকেন, মানুষ যে কোন কাজে যান তিনি কাজ করার চেষ্টা করেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করেন। গতবছর (২০২০ সনে) যখন বৈশ্বিক করোনা প্রতিরোধে দেশব্যাপী আতংক চলমান এবং করোনার মোকাবেলায় প্রস্তুতি চলছে এমনি সময়ে মোঃ কামরুজ্জামান কমলনগরে করোনা প্রতিরোধে করোনা যোদ্ধা হিসাবে আবির্ভূত হন


করোনা প্রতিরোধে সরকারি সকল নির্দেশনা বাস্তবায়নে সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নামেন তিনি। অদ্যাবধি করোনা প্রতিরোধে ও কমলনগর  কে করোনা থেকে রক্ষায় দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।করোনা প্রতিরোধে জনগনকে সচেতন করে তুলতে ও মাক্স পরিধান নিশ্চিতে এবং স্বাস্থবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে কাজ করে চলেছেন নিরলসভাবে।

আরো পড়ুন: তেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিলে গ্যাস বন্ধের হুমকি রাশিয়ার

সাংবাদিক বান্ধব এই প্রশাসনিক কর্মকর্তা করোনা প্রতিরোধে সম্মুখসারির যোদ্ধা পুলিশ প্রসাশন, স্বাস্থ্য বিভাগ, সাংবাদিকদের সমভিব্যাহারে সমন্বিত প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলশ্রুতিতে অদ্যাবধি করোনা সংক্রমনে অনেকটা নিরাপদ অবস্থানে আছে কমলনগর। 


করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ও করোনা মোকাবেলায় তিনি কখনো কঠোর আবার কখনও কৌশলে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে যাচ্ছেন। করোনাকালীন সময়ে অসহায়, দুস্থ ও গৃহবন্দীদের জন্য মানবিক আচরন করে চলেছেন। একদিকে যেমন সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নে তিনি কঠোর অন্যদিকে দরিদ্র, অসহায়ের সহায়। তিনি অসহায়, দুস্থদের মাঝে নিজে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সহায়তা পৌছে দিচ্ছেন।


এছাড়াও মোঃ কামরুজ্জামান দায়িত্ব পালন কালে অবকাঠামো উন্নয়ন সহ সরকারি সকল উন্নয়নমূলক কাজের শতভাগ বাস্তবায়ন। উপজেলার ভূমিহীন নদীভাঙ্গা গূহহীন পরিবারের স্থায়ী ঠিকানা রাস্তাঘাটে স্কুল-কলেজ নির্মাণে দারুন উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন। 


মুজিববর্ষে গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রায়ণ প্রকল্পের আওতায় 750 টি ঘর নির্মাণেও তদারকিসহ স্বচ্ছ ভাবে  সুফলভোগী যাচাই-বাছাই করেন তিনি নিজেই।

সরকারি মানবিক সহায়তা বয়স্ক, বিধবা, মুক্তিযুদ্ধা, প্রতিবন্ধী,যুব, নারী কল্যাণে উপজেলা বিভিন্ন কমর্কতাদের সাথে সমন্বয় করে উন্নয়ন করে যাছেন ইউ এন ও মোঃ কামরুজ্জামান ।

আরো পড়ুন: রাণীশংকৈলে শিক্ষকের বাসায় শিক্ষার্থীর অনশন; অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন! 

এছাড়াও উপজেলা শিশু পার্ক,প্রশাসনিক ভবনের অফিস রুম আধুনিকায়ন,মসজিদের সুদৃশ্য  অযুখানা,অফিসার্স ক্লাব নির্মাণ, বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের স্থাপনা নির্মাণে ভূমিকা রেখে চলেছেন কমলনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান। 


উপজেলার কয়েকজন মানুষের সাথে কথা বলে জানাযায়, কমলনগর উপজেলার ইতিহাসে এমন জনবান্ধব ইউএনও তারা দেখিনি। উনি অল্প কয়েকদিনে যেভাবে সকলের ভালোবাসা ও দোয়া পেয়েছেন, এই দেশ একদিন উনার মতো ভালো লোকের কারণেই উন্নতির শিখরে আরোহন করবে। উনি আছেন আমাদের উপজেলার সকল মানুষের হৃদয়ে। 


নিজের এমন মানবিক কাজের বিষয়ে জানতে চাইলে মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, উপকূলীয় নদী ভাংগনের শিকার মানুষগুলোসহ সকলের মান উন্নয়নে বর্তমান সরকারের উদ্বেগ বাস্তবায়নে আমি আমার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। সেই সাথে সরকারি অফিসগুলো তৈরি করা হয় জনসাধারণের কাজের জন্য। আমি যদি আমার অফিসে প্রবেশের জন্য কাউকে বাধা দিই, অফিসের ও সাধারণ মানুষের মাঝে পর্দা দিই, দেয়াল তুলি, তাহলে তারা কীভাবে সেবা নেবে। আমরা চাই জনসাধারণের সঙ্গে প্রশাসনের কোনো দূরত্ব থাকবে না। জনসেবার জন্যই আমাদের প্রশাসন। আমার এখানে সেবা নিতে আসা সকলের সাথে আমি নিজেই কথা বলি তাদের কথা শুনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করি। 


তিনি আরো বলেন, আমি সাধারণ মানুষের সাথে মিলে মিশে কাজ করি তাই  এখন সবাই নির্ভয়ে তাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অফিসে কথা বলতে আসে। কেউ আসেন সামাজিক সমস্যা কিংবা অভিযোগ নিয়ে। দরিদ্র মানুষরা বয়স্কভাতা, বিধবাভাতার জন্য আসেন।


মোঃ কামরুজ্জামান জন্ম কিশোরগন্জ  জেলার কটিয়াদি  উপজেলায়। রাঙ্গামাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।  । ২০২০ সালের ৮ ই অক্টোবর  থেকে লক্ষ্মীপুর কমলনগর উপজেলায় নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।



আরো পড়ুন:


পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা পরিষদের লামা উপজেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত
Lama Upazila Conference of Chittagong Hill Tracts Women's Council held


বান্দরবান জেলার লামা উপজেলা প্রেসক্লাবের হলরুমে ২৮শে মার্চ সোমবার পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা পরিষদের সম্মেলন -২০২২অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনে নওমুসলিম ফাতেমা চাকমাকে সভাপতি এবং রাবেয়া আক্তারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৬৫ সদস্য বিশিষ্ট লামা উপজেলা কমিটির ঘোষণা করা হয়। 

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

সম্মেলন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান কাজী মুজিবুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান জেলা সভাপতি ও আলীকদম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মানবাধিকার কর্মী সাংবাদিক রুহুল আমিন, লামা উপজেলা সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান।সভায় সভাপতিত্ব করেন লামা উপজেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিলদার (অব)আবদুল আজিজ।


অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে     পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মুজিবুর রহমান বলেন - ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশে বিচ্ছিন্নতাবাদী পার্বত্য সন্ত্রাসীদের দমনে সরকারকে কঠোর হতে হবে। চুক্তি লঙ্ঘন করে পার্বত্য এলাকায় নির্বিচারে হত্যার দায়ে সন্তু লারমার বিচার এবং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান আন্ঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে বহিষ্কার করতে হবে। পার্বত্য এলাকা নিয়ে  সন্তু লারমা দেশবিদেশে মিথ্যাচার করে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন এবং পার্বত্য ভুমিকে আলাদা রাষ্ট্র করার গভীর ষড়যন্ত্রের লিপ্ত রয়েছে। ৩৬ হাজার বাঙালি হত্যা করে এখন নিরীহ উপজাতি হত্যার মিশনে নেমেছে সন্তু বাহিনী। রাষ্ট্রদ্রোহি সন্তু লারমার যুদ্ধাপরাধে আন্তর্জাতিক ট্রাইবুনালে বিচার হওয়ার দরকার।সম্মেলনে বক্তারা ইউএনডিপির বৈষম্যমূলক কার্যক্রমের নিন্দা জানান।



আরো পড়ুন:




ঝিনাইগাতীতে বাংলাদেশ তাঁতীলীগ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
The 19th founding anniversary of Bangladesh Tanti League was celebrated in Jhenaigati

সারা দেশের ন্যয় শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বাংলাদেশ তাঁতীলীগ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৩১ মার্চ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলা আওয়ামীলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

উপজেলা তাঁতীলীগ এর আহবায়ক মো. আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও যুগ্ন আহবায়ক জামাল শেখের উপস্থাপনায় উক্ত প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে প্রধান অতিথি হিসেবে গুরুত্বপুর্ণ বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামীগ এর সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ এসএম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইম। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শ্রী বিশ্বজিৎ রায়, বাংলাদেশ তাঁতীলীগ শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক সেলিম, বাংলাদেশ তাঁতীলীগ শেরপুর জেলা শাখার সদস্য সচিব মোহাম্মদ মিন্টু মিয়া, বাংলাদেশ তাঁতীলীগ শেরপুর জেলা শাখার সদস্য একেএম সারোয়ার প্রমুখ। 


উক্ত প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মি সহ বাংলাদেশ তাঁতীলীগ ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখার সকল নেতাকর্মিগণ উপস্থিত ছিলেন।



আরো পড়ুন:




শেখ হাসিনার সরকার আর্থিকভাবে অস্বচ্ছলদের বিনামূল্যে আইনী সহায়তা দিচ্ছে- এমপি শাওন   
Sheikh Hasina's government is providing free legal aid to the financially indigent - MP Shaon

‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় শেখ হাসিনার অবদান, বিনামূল্যে লিগ্যাল এইডে আইনি সেবা নিন’ শ্লোগানে ভোলা জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির আয়োজনে লালমোহনে উপজেলা ও ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

৩০ মার্চ বিকাল ৫টায় লালমোহন উপজেলা অডিটোরিয়মে, ভোলা জেলা ও দায়রা জজ এবং জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান মো. মহসিনুল হকের সভাপতিত্বে পরিচিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন।

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

তিনি বলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু আমাদেরকে স্বাধীন রাস্ট্র দিয়েছে। তার অবর্তমানে তারই সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন। শেখ হাসিনার সরকারের আমলে বিচার ব্যবস্থাকে স্বাধীন করা হয়েছে। যার কারনে সাধারণ মানুষ ন্যায় বিচার পাচ্ছেন এবং শেখ হাসিনার সরকার আর্থিকভাবে অস্বচ্ছলদের বিনামূল্যে আইনী সহায়তা দিচ্ছে।   

পরিচিতি সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, ভোলা জেলার সিনিয়র সহকারী জজ ও ভোলা জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সদস্য সচিব এবং জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার সাব্বির মো. খালিদ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের  (জেলা ও দায়রা জজ) বিচারক আমিন মোহাম্মদ নিপু, চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সানাউল হক, লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (লালমোহন সার্কেল) জহুরুল হক হাওলাদার,  উপজেলা নির্বাহী অফিসার পল্লব কুমার হাজরা, লর্ডহাডিঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম মিয়া প্রমূখ।

এসময় বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যান,  মেম্বার,  মহিলা মেম্বার,  পৌরসভার কাউন্সিলর, উপজেলার সকল সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা,  বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান,  রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিতসহ অনান্যরা।



আরো পড়ুন:




মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আনসার ও ভিডিপি দলনেত্রী গৃহহীন মঞ্জু রাণী বিশ্বাস পেলেন পাকা ঘর
Homeless Manju Rani, leader of Mangalkot Union Ansar and VDP, got the pucca house


কেশবপুরের মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আনসার ও ভিডিপি দলনেত্রী গৃহহীন মঞ্জু রাণী বিশ্বাস থাকার জন্য পেলেন পাকা ঘর। বুধবার দুপুরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ওই ঘরের শুভ উদ্বোধন করেন। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর অস্বচ্ছল সদস্যদের জন্য মহাপরিচালকের উপহার হিসাবে ওই ঘর মঙ্গলকোট গ্রামের মঞ্জু রাণী বিশ্বাসকে দেওয়া হয়। 

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, যশোর জেলা আনসার ও ভিডিপি কমাড্যান্ট সঞ্জয় কুমার সাহা, কেশবপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা সাদেক, উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা সখিনা খাতুন, আনসার ভিডিপির প্রশিক্ষক দেবাশীষ দাস, মঙ্গলকোট ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের বিশ্বাস, যশোর জেলা আনসার ব্যাটিলিয়ন সদস্য নাসিরুল ইসলাম, উপজেলা কোম্পানি কমান্ডার আবু বক্কর সিদ্দিক, মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আনসার ভিডিপি দলনেতা আলতাফ হোসেন, কমান্ডার বিল্লাল হোসেন, সহকারী কমান্ডার আজিজুর হাকিম, কেশবপুর সদর ইউনিয়নের দলনেতা মহিবুল ইসলাম, দলনেত্রী চিত্রা দাস, পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের দলনেত্রী তামান্না ইয়াসমিন, পাঁজিয়ার দলনেত্রী বিভা রাণী বিশ্বাস, দলনেতা আব্দুর রশিদ প্রমুখ।

যশোর জেলা আনসার ও ভিডিপি কমাড্যান্ট সঞ্জয় কুমার সাহা বলেন, মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আনসার ও ভিডিপি দলনেত্রী গৃহহীন মঞ্জু রাণী বিশ্বাসকে তার চার শতক জমির উপর দুইরুম বিশিষ্ট একটি পাকা ঘর, একটি বাথরুম, একটি টিউবওয়েল দেওয়া হয়েছে। 

এ ব্যাপারে গৃহহীন মঞ্জু রাণী বিশ্বাস বলেন, মহাপরিচালক মহোদয়ের এই উপহার পেয়ে আমি খুবই খুশি। আমার মাথা গোঁজার ঠাই হয়েছে। আর কষ্ট পেতে হবে না।



আরো পড়ুন:




কেশবপুরের মঙ্গলকোট আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান 
Annual sports and cultural program at Mangalkot Adarsh Madhyamik Balika Vidyalaya in Keshabpur


মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে কেশবপুরের মঙ্গলকোট আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান মঙ্গলবার বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে  অনুষ্ঠিত হয়েছে।


আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুল গফুর গফফার-এর সভাপতিত্বে এবং প্রধান শিক্ষক আজিজুর রহমান-এর সার্বিক পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, ৫নং মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কাদের বিশ্বাস।


বিশেষ অতিথি ছিলেন, মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ বজলুর রহমান সরদার, ৫নং মঙ্গলকোট ইউঃ পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, আব্দুল্লাহ নূর আল-আহসান বাচ্চু, কবি ও সাংবাদিক ইব্রাহিম রেজা, কেশবপুর পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের সহ-প্রধান শিক্ষক প্রবীর কুমার মিত্র, মঙ্গলকোট ইউনিয়ন স্বাস্থ্য সহকারী রওশনারা খাতুন ডটার, প্রাক্তন পুলিশ সদস্য আনছার আলী, মঙ্গলকোট ইউনিয়ন বি,এন,পি'র সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ, এলাকা ইউপি সদস্য কামরুজ্জামান, মঙ্গলকোট বাজার কমিটির সভাপতি ডাঃ আব্দুল খালেক মোড়ল, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবুল হোসেনসহ এলাকার অভিভাবক, সুধী গুণীজনসহ দর্শক-স্রোতাবৃন্দ।

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

২৬ মার্চ প্রথম পর্বের অনুষ্ঠানমালায় ছিল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক বিভাগ ছাত্রী–১০০ মিঃ দৌড়, দড়িনাচ, বালিশ হস্তান্তর। খ বিভাগ ছাত্রী-বিস্কুট খাওয়া দৌড়, সুচে মুতা পরান দৌড়, চেয়ারে বসা। গ বিভাগ ছাত্রী- চাক্তি নিক্ষেপ, লম্বা লাফ, বর্ণা নিক্ষেপ। প্রাথমিক ও প্রি-ক্যাডেট বিদ্যালয়ের জন্য ছিল ১০০ মিঃ ও ২০০ মিঃ দৌড়, দীর্ঘ লাফ, চামচে সার্কেল দৌড়।


২৯ মার্চ মঙ্গলবার ছিল দ্বিতীয় পর্বের অনুষ্ঠানে বিকাালবেলা থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হামদ, না'ত, গজল, দেশের গান, রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুল গীতি, পল্লী গীতি, ভাওয়াইয়া, মুর্শীদি গান আধুনিক গান, হাস্য কৌতুক/ একক অভিনয়/ নৃত্য/ খবর পাঠ / লেকচার/ কবিতা আবৃত্তি।


অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন, সহকারী প্রধান শিক্ষক প্রদীপ কুমার দেবনাথ, শিক্ষক শফিকুল ইসলাম, শিক্ষক সুজিত কুমার সরকার, সহকারী শিক্ষক- শিক্ষিকাবৃন্দ ও একঝাঁক স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী। এর পর জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে এবং মঙ্গলকোট যুবসংঘের আয়োজনে চলে গানের আসর। কেশবপুর থানা পুলিশ প্রশাসন যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন।



আরো পড়ুন:




টেংরার যুব সমাজ উদহারণ সৃষ্টি করেছেন, বিশ্বনাথ সাংবাদিক ক্লাবের আহ্বায়ক মোঃ শাহিন উদ্দিন
The youth society of Tengra has set an example, said Md. Shahin Uddin, convener of Bishwanath Journalists Club


আজকের এই উপস্হিতি দেখে মনে হচ্ছে, নিঃসন্দেহে, প্রবাসী রুমেল খাঁন একজন জনপ্রিয় ও উদার মনের মানুষ। সমাজকে পরিবর্তনের জন্য এমন  সংবর্ধনা অনুষ্ঠান  ধারাবাহিক রাখতে হবে। হিংসা, বিদ্বেষ ও অন্তরের কাছরা দুর করতে টেংরার যুব সমাজ  উদহারণ সৃষ্টি করেছেন। যুব সমাজের ঐক্যতার উপর নির্ভর করে যে, কোন  অঞ্চলকে  একটি মডেল   এলাকা হিসাবে গড়ে তুলতে। 


কথা গুলো বলেছেন, বিশ্বনাথের টেংরার যুক্তরাজ্য প্রবাসী রুমেল খাঁনকে টেংরা যুব সমাজের উদ্যোগে তার স্বদেশ সফর শেষে যুক্তরাজ্য গমণ উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে বিশ্বনাথ সাংবাদিক ক্লাবের আহবায়ক মোঃ শাহিন উদ্দিন  উপরোক্ত কথা গুলো তিনি ব্যক্ত করেন। 


সংবর্ধণা অনুষ্ঠানটি যুবনেতা জিতু মিয়ার সভাপতিত্বে এবং টেংরা একাডেমির পরিচালক আলী হোসেন মোল্লার সঞ্চালনায় (৩০ মার্চ) সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা মহিন খাঁন, লালাবাজার ইউ'কে বাংলার পরিচালক আবু বকর, লালাবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির অন্যতম সদস্য ও লালাবাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ি এম এস এস আবসান খাঁন, সমাজকর্মী শাহাদাৎ হোসেন, বিশ্বনাথ নতুন বাজারের ব্যবসায়ি ও নেহা গ্রুপের চেয়ারম্যান কমিশনার আব্দুল মতিন রনি, টেংরা তাহির মিয়া একাডেমির পরিচালক রাজু আহমদ,বিশ্বনাথ নতুন বাজারের ব্যবসায়ি আব্দুল হাই আবুল, টেংরা লতিফিয়া ইসলামি সুন্নী সমাজকল্যাণ সংস্হার সভাপতি শিপন আহমদ, টেংরা ক্রিকেট ক্লাবের সাবেক অধিনায়ক  মোর্শেদুর রহমান, সাবেক ক্রিকেটার ও লালাবাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ি লিকন

আহমদ, টেংরা তাফসিরুল কুরআন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ খাঁন, টেংরা লতিফিয়া সুন্নি সমাজকল্যাণ সংস্হার কার্যকরী কমিটির সদস্য কয়ছর আহমদ।

আরো পড়ুন: সন্তানের সামনে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় আদালতে মামলা

এতে অন্যানোর মধ্যে অনুষ্ঠানে উপস্হিত ছিলেন, টেংরা শাহী ঈদগা পরিচালনা কমিটির সদস্য আছকর আলী, টেংরা তাহির মিয়া একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা তাহির মিয়া,ফুটবল কোচ আশরাফ আলী আসক মিয়া, বিশ্বনাথের ছনখাঁড়ী গাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক এডভোকেট রফিকুল হক জুনেদ,  বিশ্বনাথ কন্ট্রাক্টর এসোসিয়েশনের সদস্য কন্ট্রাক্টর জাহিদ খাঁন, টেংরা বটেরতল বাজারের  বিশিষ্ট ফার্মেসী ব্যবসায়ী ময়নুল হোসেন, সহযোগি কন্ট্রাক্টর জয়নাল খাঁন, টেংরা বটেরতল বাজারের সাবেক ব্যবসায়ি আতিকুর রহমান, টেংরা হাওয়া মামু মাজারের পরিচালনা পরিবারের সদস্য আক্তার হোসেন,  বৈরাগী বাজারের বনাজি চিকিৎসক হেকিম আনিস আলী, শ্রমিক নেতা খালেদ আহমদ, টেংরা ক্রিকেট ক্লাবের অধিনায়ক সৈয়দ আবু বকর, টেংরা তাফসিল কুরআন পরিষদের সদস্য জুয়েল আহমদ রাজু, সাবেক কোচ মুনিম খাঁন, কৃষক জামাল খাঁন, কৃষক শারিক খাঁন, এমরান খাঁন, সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতি ছাত্র নাদিমুল হাসান খাঁন, কাউছার  মিয়া, রফিক মিয়া, ক্রিকেটার রাহাত খাঁন, ফুটবলার লাহিন খাঁন, টেংরা পাঁচের মোকাম পয়েন্টের ব্যবসায়ি হাকিম আহমদ, কলেজ ছাত্র মারুফ আহমদ,  ক্রিকেটার সায়েফ আহমদ প্রমুখ।


অনুষ্ঠানে টেংরা যুব সমাজের পক্ষ থেকে যুক্তরাজ্য প্রবাসী, সমাজসেবক সংবর্ধিত ব্যক্তিত্ব রুমেল খাঁনের হাতে একটা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়েছে এবং রাত্রের ভোজনেরও ব্যবস্হা হয়েছে। 

প্রবাসী রুমেল খাঁন আগামী ১লা এপ্রিল শুক্রবার ভোরে জন্মভূমি ত্যাগ করে সুদূর যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমাবেন, আবারও সাত সমুদ্র তের নদীর ওপাড়।



আরো পড়ুন:




যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget