Articles by "ধর্ষণ"

  


ফুলপুরে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে বৃদ্ধ গ্রেফতার

ময়মনসিংহের ফুলপুরে এক শিশু কন্যাকে (৬) ধর্ষণের অভিযোগে সদর আলী (৫৫) নামে এক বৃদ্ধকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উপজেলার পয়ারী ইউনিয়নের পয়ারী ১ম খন্ডে গত ১৯ নভেম্বর সকালে এই ঘটনা ঘটে। আজ রবিবার ফুলপুর থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। 

জানা যায়, গ্রেফতার সদর আলী কলা খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ভিকটিমকে ডেকে তার বসত ঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় কেঁদে শিশুটি বাড়িতে গেলে তার মা বিষয়টি অবগত হন এবং তাকে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করেন। এরপর তার অবস্থা গুরুতর হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। এ ঘটনায় শিশু কন্যার মা বাদি হয়ে ফুলপুর থানায় মামলা করলে পুলিশ সদর আলীকে গ্রেফতার করে। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফুলপুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ব্যাপারে একটি মামলা রুজু করা হয়েছে। মামলার প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত সদর আলীকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 

আরো পড়ুন:


 


হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের গণ-অনশন চলছে 

গত নির্বাচনের আগে দেওয়া সংখ্যালঘু স্বার্থবান্ধব প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়নের দাবিতে সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা গণ–অনশন করছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। আজ শনিবার ভোর ৬টায় শুরু হওয়া এই অনশন চলবে সন্ধ্যা পর্যন্ত।

 কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকার শাহবাগ চত্বরে গণ–অনশন চলছে ভোর ৬টা থেকে। জাতীয় জাদুঘরের সামনে ঐক্য পরিষদের কয়েক শ নেতা–কর্মী উপস্থিত হয়েছেন এ কর্মসূচিতে।


২০১৮ সালে নির্বাচনী ইশতেহারে সরকারি দলের প্রতিশ্রুতিগুলোর মধ্যে রয়েছে সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন, বৈষম্য বিলোপ আইন প্রণয়ন, দেবোত্তর সম্পত্তি সংরক্ষণ আইন প্রণয়ন, জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন, অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন যথাযথ বাস্তবায়ন, পার্বত্য শান্তিচুক্তি ও পার্বত্য ভূমি কমিশন আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন এবং সমতলের আদিবাসীদের জন্য পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করা। কিন্তু বর্তমান সরকার এসব প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেনি বলে জানাচ্ছেন ঐক্য পরিষদের নেতারা।

ঐক্য পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনীন্দ্র কুমার নাথ বলেন, সরকার আমাদের যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল, তা বাস্তবায়নের দাবিতে সারা দেশে কর্মসূচি চলছে। আর ঢাকায় আমরা ভোর ৬টা থেকে গন–অনশন করছি। বেলা সাড়ে ৩টায় পরবর্তী কর্মসূচি কেন্দ্রীয়ভাবে শাহবাগ থেকে ঘোষণা করা হবে।

এই কর্মসূচিতে উপস্থিত আছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, সংসদ সদস্য মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম ইন বাংলাদেশের (এএলআরডি) নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা, ঐক্য পরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজল দেবনাথ প্রমুখ।








 


চুরি করতে করতে সকাল, পালানোর উপায় না পেয়ে ৯৯৯-এ কল

চুরি করতে গিয়ে মালামাল গোছাতে গোছাতে কখন সকাল হয়ে গেছে, টের পাননি। মালামাল নিয়ে বের হতে গিয়ে দেখেন, ভোরের আলো ফুটে গেছে, চারপাশে অনেকের আনাগোনা। এই সময় বের হতে গেলে গণপিটুনিতে পড়ার ঝুঁকি আছে, এমনটা ভেবে তিনি জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯–এ কল করেন। পরে পুলিশ এসে তাঁকে উদ্ধার করেন। বরিশাল সদর উপজেলার চর কাউয়া ইউনিয়নের এ আর খান বাজারে এ ঘটনা ঘটেছে।

ওই ব্যক্তির নাম ইয়াসিন খাঁ (৪০)। তাঁকে গতকাল বুধবার সকালে উদ্ধারের পর পুলিশ বিকেলে চুরির মামলায় জেলহাজতে পাঠায়। ইয়াছিনের বাড়ি ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার ছিলারিশ গ্রামে। বর্তমানে পরিবার নিয়ে তিনি বরিশাল নগরের কালুশাহ সড়ক এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে থাকেন।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে বন্দর থানার (সাহেবেরহাট) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘আমার চাকরিজীবনে এমন ঘটনা এটাই প্রথম। ওই ব্যক্তি স্বীকার করেছেন তিনি একজন পেশাদার চোর।’

ইয়াসিন খাঁ বলেন, গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে বরিশাল সদর উপজেলার চর কাউয়া ইউনিয়নের এ আর খান বাজারের ঝন্টু মিয়ার মুদিদোকানের দরজার তালা ভেঙে ভেতরে ঢোকেন। এরপর মালামাল বেছে কয়েকটি ব্যাগে ভরেন। মালামাল নিয়ে বের হতে গিয়ে দেখেন সকাল হয়ে গেছে। তখন সঙ্গে থাকা মুঠোফোন থেকে ৯৯৯–এ কল করে সহযোগিতা চান।

ওসি মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ইয়াসিন ৯৯৯-এ কল করে বলেন, তিনি খুব বিপদে পড়ছেন। তাঁকে যেন দ্রুত পুলিশ এসে উদ্ধার করে। পুলিশ সদস্যরা গিয়ে দোকানের ভেতর থেকে তাঁকে উদ্ধার করেন।

আরো পড়ুন:


 


ইবি শিক্ষার্থীর রহস্য জনক মৃত্যু হত্যা নাকি আত্মহত্যা। 


ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ফোকলোর স্টাডিজ বিভাগের স্নাতক ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী নিশাত তাসনিম উর্মির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে মেহেরপুরের গাংনী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহতের বাবার অভিযোগ, উর্মীকে হত্যা করে হাসপাতালে এনে নাটক সাজিয়েছে শ্বশুর বাড়ির লোকজন।

নিহত উর্মীর পিতা গোলাম কিবরিয়া জানান , গভীর রাতে বেয়াই হাসেম শাহ্ মোবাইল ফোনে জানান, মেয়ে উর্মীর অসুস্থ হওয়ায় তাকে গাংনী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়েছে। 

অসুস্থতার কারণ জানতে চাইলে উর্মীর ঘরের জানালার সাথে ফাঁস দিয়েছে বলে জানানো হয়। সংবাদ পেয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে জানতে পারেন উর্মী অনেক আগেই মারা গেছে। উর্মীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তাকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে ধামাচাপা দেয়া হচ্ছে। পরে পুলিশকে খবর দেয়া হলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেয়।

নিহত ছাত্রীর পরিবার ও সহপাঠী সূত্রে, স্কুলে পড়াকালীন সময় থেকে গাংনীর পদ্মা এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী হাসেম শাহ ছেলে আসফাকুজ্জামান প্রিন্সের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো উর্মির৷ পরে কলেজে উঠে তাদের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে ১৩ মাস বয়সী একটা ছেলে সন্তান আছে।

গাংনী থানার এসআই শাহীন সাংবাদিকদের বলেন, সংবাদ পেয়ে লাশ পুলিশ হেফাজতে নেয়ার পর একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করা হয়েছে। লাশ মেহেরপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলে পরবর্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো পড়ুন:


 



ধর্ষণ মামলায় রাজশাহী পুঠিয়ার পৌর মেয়র গ্রেফতার


রাজশাহীর পুঠিয়ার পৌর মেয়র ও সাবেক উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আল মামুন কে বুধবার ভোরে বরগুনা জেলা থেকে ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জাহাঙ্গীর আলম জানায়, কলেজ ছাত্রীর ধর্ষণ মামলার পরেই মেয়র পালাতক ছিলো। 


তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে তাকে বরগুনা জেলা থেকে গ্রেপ্তার করা হ য়েছে। এর আগে রাজশাহী কলেজের ঐ শিক্ষার্থী এজাহারে জানিয়েছেন,গত বছর স্বামীর সাথে বনিবনা না হলে তিনি তালাকের জন্য মেয়রের সাথে দেখা করেন। সেই সুত্র ধরে মেয়র মামুন তার দায়িত্ব নেয়ার প্রলোভনে বিভিন্ন স্থানে একাধিকবার ধর্ষণ করেন।


মামলা দায়েরর পর পুলিশ ভুক্তভোগির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে গত সোমবার দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়।


উল্লেখ্য,গত বছরের শুরুতে দুর্গাপুরের বাসিন্দা এক হাসপাতালের সেবিকা মেয়র মামুনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করেছিলেন। অভিযুক্তের পরিবারের দাবি, সেই মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। ভুক্তভোগীর পরিবার ও স্বজনরা সঠিক তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।


আরো পড়ুন:


 



ছেলের গলায় ছুরি ঠেকিয়ে মাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ


স্বামীর বন্ধুর বাড়ি থেকে বোনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এক গৃহবধূকে অপহরণ করে গণধর্ষণ করা হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী এক গৃহবধূ।


শিশুসন্তানের গলায় ছুরি ঠেকিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে এক নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২০ আগস্ট) হরিপুর থানায় ভুক্তভোগী ওই নারী বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

এর আগে শুক্রবার (১৯ আগস্ট) বিকেলে রানীশংকৈল উপজেলার বকুয়া ইউনিয়নের চাপধা বাজার এলাকা একটি আমবাগানে এ ঘটনা ঘটে।


মামলা সূত্রে জানা যায়, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দক্ষিণ পাড়িয়া এলাকার ওই নারী গত শুক্রবার (১৯ আগষ্ট) বিকেল সাড়ে চারটার দিকে তার সাত বছর বয়সী ছেলে মাসুমকে নিয়ে তিনি হরিপুর উপজেলার রুহিয়া এলাকায় স্বামীর বন্ধুর বাড়ি থেকে বোনের বাড়িতে যাওয়ার সময় রাণীশংকৈল উপজেলার কামারপুকুর অটো স্ট্যান্ড হইতে ধর্ষিত (২৮)কে অটোযোগে অপহরণ করে বকুয়া ইউনিয়নের চাপধা বাজারের পুর্ব উত্তর পাশে আনোয়ার মাস্টারের আম বাগানের ভিতরে নিয়ে যায়। 

বাগানে ভিতরে অপহরণকারীরা ওই গৃহবধূর ছেলে মাসুমের গলায় ছুড়ি ঠেকিয়ে জিম্মি করে তার মাকে পর্যায়ক্রমে গণধর্ষণ করে বিবস্ত্র করে। 


মামলার আসামিরা হলেনঃ হরিপুর উপজেলার বকুয়া ইউনিয়নের হাটপুকুর গ্রামের সলেমান আলীর ছেলে ফজলুর রহমান (২২), চাপধা পিপলা গ্রামের করিমুল ইসলামের ছেলে রিসাদ (২১), একই এলাকার গুচ্ছগ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে আকাশ (২২) এবং রকিম ও লসকর নামে অজ্ঞাত দুজন।


পুলিশ জানায়, ভুক্তভোগী ওই নারী দুই সন্তানের মা। গত শুক্রবার বিকেলে হরিপুর উপজেলার রুহিয়া চাপধা এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে রানীশংকৈল হয়ে বোনের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথে রানীশংকৈল উপজেলার কামারপুকুর বাসস্ট্যান্ডে কয়েক যুবক অটোচালকের যোগসাজশে ওই নারীকে কৌশলে তুলে নিয়ে যায়।


পরে বকুয়া ইউনিয়নের চাপধা বাজার এলাকার একটি আমবাগানের ভেতরে নিয়ে গিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা সাত বছরের ছেলের গলায় ছুরি ধরে ভয়ভীতি দেখায় ধর্ষকরা। এরপর রাত ১২টার সময় ওই যুবকরা ভুক্তভোগী ওই নারীকে রাস্তার পাশে ফেলে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজন ফজলুর রহমান নামে একজনকে আটক করে ৯৯৯-এ ফোন দেন। পরে পুলিশ ওই নারীকে উদ্ধার করে।


এরপর ধর্ষক ফজলুর রহমান ও ভিকটিমের ভাষ্যমতে হরিপুর থানা পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে রিসাদ ও আকাশকে আটক করে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারী বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে শনিবার হরিপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।পরে ওই ভুক্তভোগী নারীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঠাকুরগাঁও জেনারেল হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।


এ বিষয়ে হরিপুর থানার পরিদর্শক তদন্ত ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান, অভিযুক্ত পাঁচ আসামির মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পরে রাতে আদালতে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে ২২ ধারায় জবানবন্দিতে তারা নিজেদের অপরাধ স্বীকার করেন। আদালতের নির্দেশক্রমে তাদের কারাগারের পাঠানো হয়েছে।এছাড়া অন্য দুই আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।


এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রকিবুল আলম জানান, ভুক্তভোগী ওই নারী পরীক্ষার জন্য এসেছিলেন। কয়েক দিনের মধ্যে রিপোর্ট পাওয়া যাবে।


আনোয়ার হোসেন আকাশ ""রাণীশংকৈল প্রতিনিধি ""


আরো পড়ুন:

  1. সাকিব: দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে খেলা সম্ভব নয়
  2. জয়নাল হত্যা মামলার সব আসামি খালাস; পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থার নির্দেশ
  3. ফেনীর দাগনভূঁঞায় মোটরসাইকেল চোরাই চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার 
  4. ফেনীর ফুলগাজীতে দুই মহিলা ছিনতাইকারী গ্রেফতার
  5. বালিয়াডাঙ্গীতে এক পরিবারের চার সন্তানই প্রতিবন্ধী
  6. Afran Nisho: ভারতীয় ওয়েব সিরিজে আফরান নিশো
  7. পুতিনের বেপরোয়া পদক্ষেপ ইউরোপকে সরাসরি হুমকি দিচ্ছে 
  8. Russia Ukrain: বাংলাদেশি জাহাজে হামলার জন্য ইউক্রেনকে দুষছে রাশিয়া 
  9. সাড়ে ১২ কোটি মানুষ টিকার আওতায়
  10. নিয়ন্ত্রণহীন ভোজ্য তেলের বাজার
  11. ইউক্রেনে নাজুক অবস্থায় পড়ে গেছি: প্রতিমন্ত্রী


 



১২ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ


টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে ১২ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় মির্জাপুর থানায় একটি মামলা করেছে ভুক্তভোগীর পরিবার। মামলার পর বুধবার অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে মির্জাপুর থানা পুলিশ। গ্রেপ্তার টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার গরজানা গ্রামের মো. সবুজ সিকদার (২২)।


মামলা ও ভুক্তভোগীর পরিবার সুত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত ওই যুবক শিশুটির নিকট আত্মীয়। নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন সময় ওই শিশুকে ধর্ষণ করতো ওই যুবক। শরীরে হঠাৎ অস্বাভাবিক পরিবর্তন দেখে শিশুটিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তার মা। এ সময় সব ঘটনা খুলে বলে  সে। পরে ভুক্তভোগী শিশুর পরিবার মির্জাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।


মামলার পর অভিযুক্ত সবুজকে লতিফপুর ইউনিয়নের চানপুর গ্রাম থেকে বুধবার দিনগত রাত ৩টার দিকে গ্রেপ্তার করে মির্জাপুর থানা পুলিশ


এস.আই মাহফুজুর রহমান বাংলাদেশের খবরকে বলেন, অভিযুক্ত সবুজকে গ্রেপ্তারের পর বুধবার টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করা হলে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। পরে তাকে জেল হাজতে পাঠায় আদালতের বিচারক।


তিনি আরো জানান, ধর্ষণ ও অন্তসত্বার বিষয়টি নিশ্চিতের জন্য ওই শিশুকে মেডিকেল টেস্ট করানো হয়েছে।


আরো পড়ুন:


 



তাড়াশে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে বৃদ্ধ আটক


সিরাজগঞ্জের তাড়াশে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে আমজাদ হোসেন (৬৫) নামে এক বৃদ্ধকে আটক করেছে থানা পুলিশ।


শনিবার বিকেলে উপজেলার মাগুরা বিনোদ ইউনিয়নের হামকুড়িয়া শেখ পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাড়াশ থানার এসআই আব্দুল রাজ্জাক।


এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় হামকুড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রী চলন বিলের পানিতে শাপলা তোলার জন্য গেলে পার্শ্ববর্তী আমজাদ হোসেন তাকে শাপলা তুলে দেয়ার কথা বলে নৌকাতে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় মেয়েটি কান্নাকাটি করলে আমজাদ হোসেন তাকে ছেড়ে দেন। তারপর মেয়েটি বাড়িতে গিয়ে ঘটনাটি তার বাবাকে জানায়। 


এ ঘটনা শিশুর বাবা এলাকার লোকজনকে বললে সবাই গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টাকারী আমজাদকে আটক করে মারধর করে। পরে খবর পেয়ে তাড়াশ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।


ভুক্তভোগী মেয়ের বাবা মজিবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, আমজাদ এর আগে চারটি মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছিল। আমি এর উপযুক্ত বিচার চাই।


এ ব্যাপারে তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে আমজাদ হোসেন নামের একজন থানায় নিয়ে আসা হয়েছে । ভুক্তভোগী মেয়ের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরো পড়ুন:

Holy Foods ads

Holy Foods ads

যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget